অরিজিতের সুরে ফের মুগ্ধ দর্শক, শুনেই দেখুন

মুম্বই : ফের মুগ্ধ করল অরিজিৎ সিংয়ের গলা৷ মুক্তি পেল ‘বত্তি গুল হ্যয় মিটার চালু’ ছবির নতুন গান ‘হর হর গঙ্গে’৷ অরিজিতের সুরে রয়েছে প্রতিবাদের ছাপ৷ ছবির চিত্রনাট্যে শাহিদের লড়াই ফুটে উঠেছে তাঁর কন্ঠে৷ সচেত এবং পরম্পরার সঙ্গীত পরিচালনায় একের পর এক হিট ট্র্যাক মুক্তি পাচ্ছে৷ ইতিমধ্যেই ‘বত্তি গুল মিটার চালু’র ট্রেলার চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে৷ ট্রেলারের প্রথমদিকে ছবিটি কমেডি মনে হোলেও আসলে কমেডির মোড়কে রয়েছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কড়া জবাব।

তবে ডার্ক কমেডি ভেবে বসলে কিন্তু ভুল করবেন। আজকাল কমার্শিয়াল এবং নন-কমার্শিয়াল ছবি বলে ভাগাভাগি করা চলে না। কারণ কমার্শিয়াল ছবিতেও হিরো-হিরোইনের নাচ এবং রোম্যান্স ছাড়াও দর্শকের মনে দাগ কাটার মতো অনেক কিছুই থাকে। সেই ধরণের সামাজিক বার্তা দিতেই ‘বত্তি গুল মিটার চালু’। শাহিদ, শ্রদ্ধা এবং দিব্যেন্দু ছবির মুখ্য তিনটি চরিত্র৷ তিন বন্ধু বিমল (শাহিদ), নৌটি (শ্রদ্ধা) এবং ত্রিপাঠি (দিব্যেন্দু) যে জায়গায় থাকে সেই পাহাড়ি এলাকায় বিদ্যুতের খুব সমস্যা৷ চব্বিশ ঘন্টায় অধিকাংশ সময়ই বিদ্যুৎ থাকে না৷

এমন পরিস্থিতিতে অদ্ভুতভাবে ত্রিপাঠির কাছে আড়াই লাখ টাকার বিল পৌঁছে যায়৷ যে জায়গায় অর্ধেক সময় বিদ্যুৎ থাকে না সেখানে এতো টাকার বিল আসে কী করে! সমাজের ওপরের মহল থেকে শুরু করে ইলেকট্রিসির অফিসেও কথা বলে এই বিলের কারণ খোঁজার চেষ্টা করে সে৷ উল্টে তাকে হুমকি দেওয়া সময় মত বিল পেমেন্ট না করলে তাঁর বাড়িতে ওয়ারেন্ট যাবে৷ পরিস্থিতির চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে ত্রিপাঠি৷ একটি ইলেকট্রিসিটি বিলের কারণে দুর্বিসহ হয়ে উঠল সকলের জীবন৷

- Advertisement -

ত্রিপাঠির আত্মহত্যায় তার পরিবার ছাডা়ও সবচেয়ে বেশি আঘাত পেল বিমল এবং নৌটি৷ শুরু হল তাদের লড়াই৷ দিব্যেন্দুর মৃত্যু আদেও আত্মহত্যা নয়, সমাজের দুর্নীতি তাকে খুন করেছে৷ তাকে নিজের প্রাণ নিতে বাধ্য করেছেন৷ সমাজের উঁচু স্তরের প্রত্যেকের সঙ্গে সংঘর্ষে নামতে থাকে বিমল৷ তার পাশে ঢাল হয়ে দাঁড়ায় নৌটি৷ তাদের লড়াই আদালতের চার দেওয়াল অবধিও উঠে যায়৷ অবশেষে কী হবে হবে এর পরিণাম? উত্তর মিলবে ২১ সেপ্টেম্বর৷

Advertisement ---
---
-----