অগ্নিগর্ভ আমডাঙা, নিহত তিন, ধৃত ১০

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন ঘিরে সংঘর্ষ৷ উত্তর ২৪ পরগনার আমডাঙায় মঙ্গলবার রাতে তৃণমূল সিপিএম সংঘর্ষে নিহত ৩৷ নিহতদের মধ্যে দুজন তৃণমূল ও একজন সিপিএম কর্মী৷ আহত উভয় পক্ষের ২২ জন৷ ঘটনায় গ্রেফতার ১০৷

বুধবার আমডাঙা থানার অন্তর্গত তারাবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন হবে৷ ফলে এলাকায় জুড়ে ছিল উত্তেজনা৷ কিন্তু তার আগেই শাসক বিরোধী সংঘর্ষে আমডাঙা হয়ে ওঠে রণক্ষেত্র৷ মঙ্গলবার রাত বাড়তেই বহিসগাছি অঞ্চলে শুরু হয় বোমার লড়াই৷ মুহুর্মুহু বোমা পড়তে থাকে৷ চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে অশান্তির পরিবেশ৷

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনেও সংঘর্ষ অব্যাহত

- Advertisement -

একটা সময় দুষ্কৃতীরা ট্রান্সফরমারের লাইন কেটে বিদ্যুৎহীন করে দেয় গোটা আমডাঙা৷ পুলিশকে গ্রামে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয় বলেও জানা গিয়েছে৷ প্রাক্তণ ও বর্তমান শাসক দলের সংঘর্ষ এক সময় তীব্র আকার ধারণ করে৷ শুরু হয় বোমা, গুলির লডা়ই৷

এরই মধ্যে বোমার আঘাতে মৃত্যু হয় মোট তিন জনের৷ শাসক দলের নিহত দুই কর্মী নাসির হালদার (৩৪) এবং কুদ্দুশ আলি গাইন (৩২)৷ মৃত্যু হয় মুজাফ্ফর পিয়াদাদ নামের এক সিপিএম কর্মীর৷

আরও পড়ুন: মণি স্কোয়্যারে আগুন

এলোপাথারি বোমা ও গুলিতে জখম উভয় পক্ষের ২২ জন৷ জখমদের বারাসাত জেলা হাসপাতালে এবং বারাকপুর মহকুমা হাসপাতালে ভরতি করা হয়৷ আহত দলীয় কর্মীদের দেখতে সেখানেই যান মন্ত্রী তথা তৃণমূলের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷ l ‘‘রাজনৈতিক স্বার্থে বিরোধীরা খুনের রাজনীতি করছে৷’’

আমডাঙায় সংঘর্ষে ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ আটক করা হয়েছে ৯ জনকে৷ রাতভর তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করা হয়েচে প্রচুর বোমা৷

আরও পড়ুন: পেটিএম কিনল ওয়ারেন বাফে

আমডাঙার তৃণমূল বিধায়ক রফিকুর রহমানের আভিযোগ, ‘‘সিপিএম ও বিজেপির যৌথ হামলায় নিহত হয়েছে দুই তৃণমূল কর্মী। পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ৷’’ পাল্টা বোর্ড গঠন পর্বে শাসক দলের সন্ত্রাসের অভিযোগ করছে বিরোধীরা৷

অগ্নিগর্ভ আমডাঙা৷ এলাকায় মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী৷ হিংসার আবহে আজ তারাবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন হবে৷ পরিস্থিতি ফের উত্তপ্ত হতে পারে আঁচ করতে পেরে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটকে৷

Advertisement ---
---
-----