প্রকাশ্য গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে রণক্ষেত্র বিরাটি

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: উত্তর ২৪ পরগনার উত্তর দমদম পুরসভার শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের উপপুরপ্রধান মহম্মদ নাজিমুদ্দিনকে পুরসভার ভিতরে ঢুকে মারধর ও হামলার ঘটনায় রণক্ষেত্রের চেহারা নিল গোটা এলাকা৷ বুধবার দুপুরে নিমতা থানার অন্তর্গত বিরাটি বনিক মোড় এলাকার ঘটনা। পরে নিমতা থানার পুলিশ অভিযুক্ত দুই পুরসভার কন্ট্রাক্টরকে গ্রেফতার করলে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়।

অভিযোগ, শাসকদলেরই ঘনিষ্ঠ দুই কন্ট্রাক্টর তাপস মন্ডল ও নৃপেন মন্ডল উপপুরপ্রধানকে পুরসভার ভিতরে জামার কলার ধরে চর, থাপ্পড়, কিল, ঘুষি মারে। এই ঘটনার কথা নাজিমুদ্দিন তার অনুগামীদের জানালে কিছুক্ষনের মধ্যেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে উত্তর দমদম পুরসভা এলাকা। শুরু হয় পথ অবরোধ, রেল অবরোধ এবং নিমতা থানা ঘেরাও।

স্থানীয় সূত্রের খবর, উত্তর দমদম পুরসভার তৃনমূল কংগ্রেসের পুরপ্রধান কল্যান করের ঘনিষ্ট ওই দুই কন্ট্রাক্টর। শাসক দলের পুরপ্রধানের ঘনিষ্ঠ হওয়ার কারনেই পুরসভায় দীর্ঘদিন ধরে দাপট দেখিয়ে আসছে তারা। বুধবারের হামলার ঘটনা প্রসঙ্গে আক্রান্ত মহম্মদ নাজিমুদ্দিন বলেন, ‘‘আমার ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডে একটি পার্ক তৈরীর কাজ চলছে। কন্ট্রাক্টর নৃপেন, তাপস সেই কাজের বরাত পেলেও তারা ঠিক মতো কাজ করছে না, ফলে এলাকায় উন্নয়ন পরিষেবা বাঁধা পাচ্ছে। আমি ওদের পুরসভাতে কথা বলতে ডেকে পাঠাই। কেন কাজে দেরি হচ্ছে? প্রশ্ন করতেই নৃপেন ও তাপস আমার জামার কলার ধরে পুরসভার অফিসের মধ্যেই আমাকে শারীরিক ভাবে প্রচন্ড হেনস্থা করে। গোটা বিষয়টি আমি দলীয় শীর্ষ নেতৃত্ব এবং পুলিশকে জানিয়েছি। ওদের কঠোর শাস্তি চাই আমি।’’

- Advertisement DFP -

এদিকে এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই বুধবার দুপুরে নাজিমুদ্দিনের অনুগামীরা প্রথমে বিরাটির বনিক মোড় এলাকা অবরোধ করে। পরে তারা বিরাটি রেল স্টেশনে প্রায় ৪৫ মিনিট অবরোধ করে। এর ফলে শিয়ালদহ-বারাসাত ও শিয়ালদহ-বনগাঁ শাখায় ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। উত্তর দমদমে উত্তেজনার খবর পেয়ে উত্তর ২৪ পরগনার জেলা সভাপতি তথা রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক দ্রুত স্থানীয় সাংসদ সৌগত রায়কে ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর নির্দেশ দেন। সৌগত রায় ঘটনাস্থলে পৌঁছতে গেলে তিনিও নাজিমুদ্দিনের অনুগামীদের অবরোধে আটকে পড়েন।

পরে স্থানীয় নিমতা থানার পুলিশের হস্তক্ষেপে তিনি উত্তর দমদম পুরসভাতে পৌঁছন৷ সেখানে গোটা বিষয়টি নিয়ে পুরপ্রধান কল্যান কর, উপপ্রধান মহম্মদ নাজিমুদ্দিন এবং স্থানীয় চেয়ারম্যান ইন কাউন্সিল সদস্যদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘অসাধু কন্ট্রাক্টরদের দুর্নীতির প্রতিবাদ করেছিল বলেই আজকে নাজিমুদ্দিনকে আক্রান্ত হতে হয়েছে। দুই অভিযুক্ত কন্ট্রাক্টরকে পুলিশ ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করেছে। ওই দুই কন্ট্রাক্টরের লাইসেন্স বাতিল করা হবে। অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তি হবে।’’

সাংসদের এই আশ্বাসের পর বিরাটিতে রেল অবরোধ, পথ অবরোধ ও থানা ঘেরাও তুলে নেন নিজামউদ্দিনের অনুগামীরা। এদিকে উত্তর দমদম পুরসভার বিরাটি বনিক মোড় এলাকায় উত্তেজনার জেরে ওই এলাকায় বসানো হয়েছে পুলিশ পিকেট। শুধু দুই কন্ট্রাক্টরই নয়, তৃণমূল কংগ্রেসের উপপুরপ্রধান নিজামউদ্দিনের উপর হামলার ঘটনায় আরও এক স্থানীয় সমাজ বিরোধীকে খুঁজছে নিমতা থানার পুলিশ। ইতিমধ্যেই নিমতা থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

Advertisement
----
-----