সচিনদের ছেঁটে পেশাদার পরামর্শদাতা চায় বোর্ড

মুম্বই: সচিন-সৌরভদের ‘ফ্রি অ্যাডভাইস’এর প্রয়োজন ফুরিয়েছের বোর্ডের৷ এবার থেকে টাকা দিয়ে পরামর্শ কিনতে চায় বিসিসিআই৷

আরও পড়ুন: শাস্ত্রীকে কাঠগড়ায় তুলছেন ভাজ্জি

কোচ বাছাই থেকে নির্বাচক কমিটি নিয়োগ, বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিসিসিআইকে পরামর্শ দেওয়ার জন্য গঠিত হয়ছিল ক্রিকেট অ্যাডভাইজরি কমিটি৷ জগমোহন ডালমিয়া ও অনুরাগ ঠাকুর বোর্ডের ক্ষমতায় থাকাকালীন সচিন, সৌরভ ও ভিভিএস লক্ষ্মণকে নিয়ে গঠন করা হয়েছিল এই কমিটি৷

অনিল কুম্বলেকে টিম ইন্ডিয়ার কোচ নিয়োগ ছিল তিন পরামর্শদাতার প্রথম অ্যাসাইনমেন্ট৷ পরে কুম্বলের জায়গায় রবি শাস্ত্রীকে ভারতীয় দলের দায়িত্ব দিয়েছিল ক্রিকেট অ্যাডভাইজরি কমিটিই৷ যদিও এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত কমিটির সর্বসম্মত ছিল কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়৷ শাস্ত্রীর কোচ হওয়ার পিছনে কলকাঠি নেড়েছিলেন ক্যাপ্টেন কোহলিই৷

আরও পড়ুন: এমন ব্যাটিং মেনে নেওয়া যায় না, শাস্ত্রীকে তোপ বিনোদ রাইয়ের

ক্রিকেট অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্যরা নিজেদের কাজের জন্য এতদিন কোনও পারিশ্রমিক নিতেন না৷ মাঝে সিএসি’র সদস্যরা টাকা পান কি না, এই নিয়ে গুঞ্জন উঠলে বোর্ডের তরফে স্পষ্ট করে দেওয়া হয় যে, নিতান্ত সাম্মানিক পদে নিযুক্ত রয়েছেন সচিনরা৷

এহেন অ্যাডভাইজরি কমিটির তিন সদস্যকে এবার ছেঁটে ফেলতে পারে বিসিসিআই৷ সিওএ প্রধান বিনোদ রাই তেমনটাই চাইছেন৷ সচিন, সৌরভ ও লক্ষ্ণণকে নিয়ে স্বার্থের সংঘাতের প্রশ্ন উত্থাপিত হওয়ায় বোর্ড কমিটি রেখে দিয়ে নতুন সদস্য নিয়োগ করতে চাইছে৷ সচিনদের বদলে অন্য কোনও প্রাক্তন ক্রিকেটারদের কমিটিতে নিয়ে আসতে চাইছে সিওএ৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ল ভারতীয় কোচের

আরও উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এবার থেকে অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্যদের পাশ থেকে সাম্মানিক শব্দটি তুলে দিতে চলেছে বোর্ড৷ পরিবর্তে পারিশ্রমিকের বিনিময়ে পেশাদার কমিটি গঠন করতে তৎপর সিওএ৷

ক’দিন আগেই সুপ্রিম কোর্ট বোর্ডের খসড়া সাংবিধানকে স্বীকৃতি দিয়েছে৷ আদালতের রায় অনুযায়ী নির্বাচনের পর বিসিসিআই-এর নতুন কমিটি গঠিত হলেই প্রাসঙ্গিকতা হারবে সিওএ৷ তবে ততদিন অ্যাডভাইজরি কমিটি ও প্রাক্তন ক্রিকেটারদের পরামর্শ মতো কাজ চালাবে সিওএ’ই৷

আরও পড়ুন: হার দিয়ে শুরু ভারতের এশিয়ান গেমস অভিযান

এই অবস্থায় সিওএ চাইছে আসন্ন বার্ষিক সাধারণ সভাতেই নতুন পরামর্শদাতা কমিটি গড়তে, যার সদস্যরা হবেন বেতনভুক৷ এই কমিটিতে থাকতে হলে সৌরভকে ধারাভাষ্য ছাড়তে হবে৷ ছাড়তে হবে সিএবি সভাপতির পদও৷ লক্ষ্ণণকে ছাড়তে হবে কমেন্ট্রিসহ সংবাদমাধ্যমের প্রতি তাঁর যাবতীয় দায়বদ্ধতা৷ ছেলে অর্জুনের নাম অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় দলে বিবেবিচ হওয়ায় সচিনের পক্ষে এই কমিটিতে থাকা সম্ভব নয়৷ সুতরাং এই কমিটিতে নতুন সদস্যদের দেখতে পাওয়ার সম্ভাবনাই প্রবল৷

Advertisement
---
-----