খতিয়ে দেখা হয় ব্রিজের হালহকিকতও৷

মুর্শিদাবাদ: একদিকে মাঝেরহাট কিংবা ফাঁসিদেওয়ায় ভেঙে পড়েছে কংক্রিটের ব্রিজ৷ অন্যদিকে ডোমকলে ভয়াবহ নৌকাডুবি৷ কিছুটা হলেও এবার বোধহয় নড়েচড়ে বসছে প্রশাসন৷ শনিবারই ব্লকের বিভিন্ন সেতু ও ফেরিঘাট পরিদর্শন করেন মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জ-১ ব্লকের প্রশাসনিক কর্তারা৷

মাঝেরহাট কাণ্ডের পর রাজ্য সরকারের তরফে জরুরি ভিত্তিতে রাজ্যজুড়ে বিভিন্ন স্পর্শকাতর সেতুগুলির তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে৷ এবং সমস্ত সেতুর উপর দিয়ে ভারী যান চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। রাজ্য সরকারের নির্দেশ মেনে মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জ ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে রঘুনাথগঞ্জ-১ ব্লকের মিয়াপুর রেলব্রিজ, গুজুরপুর গঙ্গা ব্রিজ-সহ বিভিন্ন ব্রিজ পরিদর্শন করেন বিডিও৷

আরও পড়ুন: ‘পাকিস্তান জুড়ে সাংবাদিকতার মৃত্যুর ঘণ্টাধ্বনি শোনা যাচ্ছে’

বিডিও সৈয়দ মাসুদুর রহমানের সঙ্গে ছিলেন অন্যান্য প্রশাসনিক আধিকারিকরাও৷ শনিবার এই ব্রিজগুলির পাশাপাশি ডোমকলের মধ্য গরীবপুরে নৌকাডুবির ঘটনার কথা মাথায় রেখে রঘুনাথগঞ্জ সদর ফেরিঘাট-সহ বিভিন্ন ফেরিঘাটও পরিদর্শন করেন প্রশাসনিক কর্তারা৷

এদিন ফেরিঘাটে প্রতি নৌকায় ১৫জনের বেশি যাত্রী আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হয়৷ যাত্রী সুরক্ষা নিয়ে ফেরিঘাটের মাঝি ও যাত্রীদের সঙ্গে কথাও বলেন আধিকারিকরা। যাত্রী নিরাপত্তায় লাইফ জ্যাকেট-সহ অন্যান্য সরঞ্জাম আছে কি না তাও খতিয়ে দেখেন৷ বিডিও সৈয়দ মাসুদুর রহমান জানান, যাত্রী সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে সমস্ত ফেরিঘাটগুলিতেই নিয়ম মেনে যাত্রী পারাপার করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ পাশাপাশি তিনি বলেন, যেসব সেতুগুলির মেরামতের দরকার দ্রুত তা করানোর নির্দেশ দেন তিনি৷

আরও পড়ুন: কলকাতায় ফুটপাথে তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগ

https://youtu.be/CbM2qH9a6q4

----
--