সদর হাসপাতালের বেহাল দশা, নিরুত্তাপ প্রশাসন

পুরুলিয়া: নামেই সদর হাসপাতাল৷ পরিকাঠামো বলছে কিছুই আর অবশিষ্ট নেই৷ একদিকে সামান্য বৃষ্টিতেই লিফট বিকল, অন্যদিকে ওয়ার্ডের মধ্যেই মাথায় ছাতা ধরে বসে প্রসূতি মহিলারা৷ ভরা বর্ষায় কোথাও ছাদ দিয়ে পড়ছে জল, কোথায়ও জল জমে উৎপাত বেড়েছে মশার৷ পুরুলিয়ার দেবেন মাহাতো সদর হাসপাতালের অবস্থাটা এখন এরকমই বেহাল৷

রোগী পরিবারের অভিযোগ, পুরুলিয়া সদর হাসপাতালের বেহাল দশা। টানা তিন দিন বন্ধ লিফট৷ রোগীদের স্ট্রেচারে করে ওঠা নামা করাতে হচ্ছে সিঁড়ি দিয়ে। অপারেশনের পরও সেই সিঁড়ি ভেঙেই ওঠা নামা করাতে হচ্ছে রোগীদের৷ যে কোন মুহূর্ত্বে ঘটতে পারে বিপদ৷

পুরুলিয়া সদর হাসপাতালে টানা ৭২ ঘণ্টা লিফট পরিষেবা বন্ধ থাকার পাশাপাশি, ছাদ চুঁইয়ে জল পড়ছে মহিলা মেডিক্যাল ওয়ার্ডে৷ গত দুদিনের মত আজও ছাতা মাথায় রোগীরা৷ রোগীদের অভিযোগ, হাসপাতালের চরম অব্যবস্থার কথা কর্তৃপক্ষকে বারবার জানিয়েও কোন লাভ হয নি৷ এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কথায়, হাসপাতালের চরম অব্যবস্থার কথা পূর্ত দফতরকে বারবার জানিয়েও কোন লাভ হয়নি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোন কথাতেই কান দেয় না জেলার পূর্ত দফতর৷ তবে, পূর্ত দফতর এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে৷ তাদের কথায়, হাসপাতাল নিয়ে কোন কাজই ফেলে রাখা হয় না৷

- Advertisement -

দুই দফতরের কথার লড়াই চলছে৷ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও পূর্ত দফতরের কাজ করা, না করার লড়াইয়ে ফল ভোগ করছে পুরুলিয়ার রোগীরা৷ কবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও পূর্ত দফতরের চেতনা হয়, তার জন্যই অপেক্ষা সাধারণ মানুষের৷ রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা কেন ব্য়বস্থা নিচ্ছেন না, তা নিয়েও প্রশ্ন রোগীর আত্মীয়দের৷ লজ্জাজনক ছবি সংবাদমাধ্যমে দেখে যদি টনক নড়ে প্রশাসনের, তারই জন্য অপেক্ষা করে আছেন পুরুলিয়ার আমজনতা৷

Advertisement
---