সেন্ট পিটার্সবার্গ: বিশ্বকাপে স্বপ্নের সফর শেষ করল বেলজিয়াম৷ গ্রুপ লিগে প্রথম সাক্ষাতে ১-০ ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিল বেলজিয়াম। বিশ্বকাপের তৃতীয় স্থানের লড়াইয়েও শেষ হাসি হাসল বেলজিয়াম। শনিবার সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে ১৯৬৬ বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের ২-০ হারিয়ে বিশ্বকাপে প্রথমবার প্রথম তিনে শেষ করল বেলজিয়াম৷ এর আগে ১৯৮৬ সালে চতুর্থ স্থানে বিশ্বকাপ শেষ করেছিল বেলজিয়াম৷

শনিবার ম্যাচের শুরুতেই গোল করে এগিয়ে যায় বেলজিয়াম। ৪ মিনিটে নাসের চাডলির নীচু পাশ থেকে অনবদ্য গোল করেন ডিফেন্ডার থমাস মিনিয়ের। শুরুতে গোল খেলেও তৃতীয় স্থানের জন্য লড়াই করতে ছাড়েনি কেনব্রিগেড। ম্যাচের প্রথমার্ধে দুই দলের মধ্যে বিশ্বকাপ সুলভ “কাঁটে কা টক্কর” দেখা গেল মাঠে। বল পোজিশান এবং পাসিংয়ে এগিয়ে থেকেও প্রথমার্ধে গোলমুখ খুলতে ব্যর্থ থাকে ইংল্যান্ড। বেশ কয়েবার গোল লক্ষ্য করে শট নিলেও প্রথমার্ধে বিপক্ষের জালে বল জড়াতে পারেননি কেনরা। ১-০ ব্যবধানে ম্যাচের প্রথমার্ধ শেষ। দ্বিতীয়ার্ধে ৮২ মিনিটে হ্যাজার্ডের গোলে ব্যবধান বাড়ায় বেলজিয়াম৷

দ্বিতীয়ার্ধেও অনেকবার বল নিয়ে বেলজিয়ামের রক্ষণ ভাঙেন কেনরা কিন্তু ওই পর্যন্তই৷ গোল আসেনি শেষমেশ৷ ব্রিটিশ মিডফিল্ডার এরিক ডায়ার দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝি সময়ে একটি দারুণ সুযোগ মিস করেন৷ কেনরা না পারলেও প্রশংসার দাবী রাখেন ব্রিটিশ গোলকিপার পিকফোর্ড৷ বেলজিয়াম ফুটবলার এবং ইংল্যান্ডের জালের মাঝে পিকফোর্ড না আসলে আরও বড় ব্যবধানে হারত ইংল্যান্ড৷ তৃতীয় হয়ে বিশ্বকাপ মঞ্চ থেকে প্রায় ২ কোটি ৪০ লক্ষ ডলারের পুরস্কারমূল্য নিশ্চিত করল বেলজিয়াম৷ চতুর্থ স্থানে থাকা ইংল্যান্ডের ঝুলিতে আসতে চলেছে প্রায় ২ কোটি ২০ লক্ষ ডলার৷

শনিবারের লড়াইটা বেলজিয়াম বনাম ইংল্যান্ডের পাশাপাশি রোমেলু লুকাকুর বনাম হ্যারি কেনের মধ্যেও ছিল৷ গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে ছিলেন এই দুই ফুটবলার কিন্তু সেন্ট পিটার্সবার্গে এই দুই খেলোয়াড়ের কেউই গোল মুখ দেখেন নি৷

বেলজিয়ামের হয়ে দুটি গোল করলেন থমাস মুনিয়ের এবং এডেন হ্যাজার্ড ৪ মিনিটে মুনিয়েরের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল বেলজিয়াম৷ ৮২ মিনিটে ব্যবধান বাড়িয়ে ২-০ করেন হ্যাজার্ড৷ কেভিন ডি ব্রুয়েনের পাশ থেকে গোল করেন হ্যাজার্ড৷

----
--