সন্তোষের সেমিফাইনালে রঞ্জনের বাংলা

কলকাতা: সন্তোষ ট্রফির প্রথম তিন ম্যাচে একটানা জয় তুলে নিয়ে সেমিফাইনালে জায়গা পাকা করে রাখল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বাংলা৷ প্রথম ম্যাচে মণিপুরকে ৩-০ গোলে হারানোর পর দ্বিতীয় ম্যাচে মহারাষ্ট্রকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল রঞ্জন চৌধুরীর প্রশিক্ষণাধীন বাংল দলা৷ চার দিনের ব্যবধানে মাঠে নেমে গ্রুপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে চণ্ডীগড়কে ১-০ গোলে পরাস্ত করে তারা৷ ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন অনূর্ধ্ব-১৯ ইস্টবেঙ্গলের বিদ্যাসাগর সিং৷

বাংলা গ্রুপের প্রথম দু’টি ম্যাচ খেলেছিল হাওড়ার শৈলেন মান্না স্পোর্টস কমপ্লেক্সে৷ চণ্ডীগড়ের বিরুদ্ধে তাদের ম্যাচ ছিল মোহনবাগান মাঠে৷ পেটের সমস্যায় দলনায়ক জীতেন মুর্মু৷ তাঁর পরিবর্তে দলকে নেতৃত্ব দেন তীর্থঙ্কর সরকার৷

ম্যাচের প্রথমার্ধেই কাঙ্খিত গোল পেয়ে যায় বাংলা৷ ১৮ মিনিটে বিদ্যাসাগরের দূরপাল্লার শট চণ্ডীগড় অধিনায়ক রাহুলের গায়ে লেগে জালে জড়িয়ে যায়৷ টুর্নামেন্টে এই নিয়ে চারটি গোল করলেন বিদ্যাসাগর৷ মণিপুরের বিরুদ্ধ একটি ও মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধে এক জোড়া গোল করেছিলেন তিনি৷

- Advertisement -

৩৬ মিনিটে মাথায় চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন বাংলার নির্ভরযোগ্য ডিফেন্ডার মনোতেষ চাকলাদার৷ চণ্ডীগড় গোলকিপার সলমন লতিফ বাংলাকে দ্বিতীয় গোল উপহার দিয়ে বসেছিলেন প্রায়৷ বঙ্গ স্ট্রাইকার রাজন বর্মনের পায়ে বল ছুঁড়ে দিয়েছিলেন তিনি৷ তবে গোলমুখে রাজনের ইতস্তত করার সুযোগ নিয়ে সে যাত্রায় পতন রোধ করে চণ্ডীগড় ডিফেন্ডাররা৷

অন্যদিকে হাওড়া স্টেডিয়ামে কেরল ৩-০ গোলে হারিয়ে দেয় মহারাষ্ট্রকে৷ ‘এ’ গ্রুপ থেকে তারাও শেষ চারের টিকিট নিশ্চিত করে৷ বাংলার মতো প্রথম তিন ম্যাচের পর তাদের সংগ্রহও ৯ পয়েন্ট৷ তবে গোল পার্থক্যে গ্রুপের শীর্ষ স্থান দখল করে রেখেছে কেরল৷ মঙ্গলবার বাংলার সঙ্গে কেরলের মুখোমুখি সাক্ষাতে নির্ধারিত হয়ে যাবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন কারা হবে৷

Advertisement
---