বাংলায় গণতন্ত্র ফেরাতে দিল্লিতে ধর্না দিল বঙ্গ বিজেপি

নয়াদিল্লি: রাজ্যে বিপন্ন হয়ে পড়েছে গণতন্ত্র। শাসকদলের হাতে বারবার প্রাণ দিতে হচ্ছে বিরোধী রাজনৈতিক দলের কর্মী এবং সমর্থকদের। এই অবস্থায় রাজ্যে গণতন্ত্র ফেরাতে জাতীয় রাজধানী দিল্লিতে ধর্নায় বসল বঙ বিজেপি।

আরও পড়ুন- দিল্লিতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ মমতার দলের হেভিওয়েট নেতার

সোমবার সকালে দিল্লির রাজঘাট এলাকায় ধর্নায় বসে বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্ব। উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, দিল্লী প্রদেশের রাজ্য সভাপতি মনোজ তিওয়ারি, কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, সাধারণ সম্পাদিকা দেবশ্রী চৌধুরী, সহ সভাপতি ডঃ সুভাষ সরকার, জয়প্রকাশ মজুমদার, মহিলামোর্চার সভানেত্রী লকেট চ্যাটার্জী, মহিলামোর্চার সম্পাদিকা বিভা মজুমদার, বিজেপি নেতা মুকুল রায় সহ বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় ও রাজ্য নেতৃত্ববর্গ।

- Advertisement DFP -

পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হিংসার খবর আসতে শুরু করে সবক্ষেত্রেই অভিযোগের তির ছিল রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। মনোনয়ন দিতে বাধা দেওয়া, মনোনয়ন জমা দেওয়া প্রার্থীদের হুমকি দিয়ে প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করে নেওয়ার মতো একগুচ্ছ অভিযোগ তুলেছিল রাজ্যের বিরোধী শিবির। অভিযোগকারীদের তালিকায় শীর্ষে ছিল কেন্দ্রের শাসক ভারতীয় জনতা পার্টি।

রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনে সার্বিকভাবে ভালো ফল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। রাজ্যের শতকরা ৩৪ ভাগ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছে ঘাসফুল শিবির। হিংসার সৌজন্যে তৃণমূল পঞ্চায়েত ভোটে জিতেছে বলে দাবি করে বিরোধীরা।

এতকিছুর মধ্যেও জঙ্গলমহলে ভালো ফল করেছে বিজেপি। ফল ঘোষণার পরেই পুরুলিয়াকে বিরোধী শূন্য করার ডাক দিয়েছিলেন তৃণমূলের যুবনেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরেই ওই জেলার দুই বিজেপি কর্মী খুন হয়। মৃত দুই বিজেপি কর্মী হলেন ত্রিলোচন মাহাতো এবং দুলাল কুমার। ওই দুই খুনের ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয়েছে বঙ্গ বিজেপি। পুরুলিয়া জেলাতেও একদফা ধর্না প্রদর্শন করেছে রাজ্যের পদ্ম শিবির। এবার পুরুলিয়ার প্রতিবাদের রেশ জাতীয় স্তরে পৌঁছে দিতে দিল্লিতে ধর্না দিল দিলীপ-রাহুলরা।

পশ্চিমবঙ্গে ২৫ দিনে ২৫ জন বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে, পঞ্চায়েত নির্বাচনে ভোটের নামে হয়েছে প্রহসন, রক্তপাতের রাজনীতি চলছে সমগ্র বাংলা জুড়ে। এই প্রতিকূল অবস্থার বদলের দাবিতে এবং রাজ্যে গণতন্ত্র ফেরাতে দিল্লিতে ধর্নায় বসে বিজেপি নেতৃত্ব। পঞ্চায়েত নির্বাচন এবং তার পরবর্তী পরিস্থিতিতে রাজ্যের হিংসাত্মক পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যের শাসকদল এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করেন বঙ্গ বিজেপি-র মহিলা মোর্চার সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। ক্ষমতায় এসে রাজ্যের জন্য ভালো কাজ করতে পারেনি বলেই তৃণমূল কংগ্রেস মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বক্তব্য রাখেন হিন্দিতে। বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের দেশ ভারতের অঙ্গরাজ্য পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের হত্যা করা হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি। একই সঙ্গে নিজের বক্তব্যের সপক্ষে যুক্তি দিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন হিংসার ঘটনার কথা তুলে ধরেন দিলীপ বাবু।

Advertisement
----
-----