বিধানসভার তথ্য ডিজিটাইজেশন করবে রাজ্য

কলকাতা: রাজ্য বিধানসভার দু’লক্ষ বই ও নানা দলিলের ডিজিটাইজেশন করার উদ্যোগ নিল রাজ্য সরকার৷ একইসঙ্গে বিদেশীরাও যাতে এইসব তথ্যের মাধ্যমে সমৃদ্ধ হতে পারেন, সেই চেষ্টা করা হবে৷ বিধানসভায় প্ল্যাটিনাম জয়ন্তী স্মারক ভবনের শিলান্যাস করার পর বলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ট্রান্সপারেন্সি, অ্যাকাউন্টেবিলিটি, ক্রেডিবিলিটি বজায় রেখে তা সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরা উচিত৷

পশ্চিমবঙ্গ সরকারই প্রথম নেতাজী সুভাষ সংক্রান্ত সমস্ত ফাইল জনসমক্ষে আনা হয়৷ বিধানসভাতেও গণতন্ত্রের ধারা বজায় রাখতে হবে৷ বিধানসভা গণতন্ত্রের মন্দির, মসজিদ, গুরুদ্বার, গির্জা৷ কলকাতা ও রাজ্য পুলিশের লাইব্রেরি আছে, যা আরও উন্নত করা হবে৷ বিধানসভার লাইব্রেরিতে যে সতীদাহ প্রথা বিল রাখা আছে তা দেশের সংসদও গ্রহণ করেছে৷ এগুলিকে ই-লাইব্রেরির মাধ্যমে তুলে ধরতে চান মুখ্যমন্ত্রী৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, এই বিল্ডিং হলে লাইব্রেরির পরিধিও বাড়বে৷

সম্প্রতি লন্ডনে সিস্টার নিবেদিতার বাড়ি হেরিটেজ ঘোষণার সময় আমন্ত্রণ রক্ষা করতে গিয়ে ব্রিটিশ কাউন্সিলর ডিরেক্টরেটের কাছ থেকে তিনি জানতে পেরেছেন ১ লক্ষ বাংলা বই তারা ইংরাজিতে অনুবাদ করেছেন৷ ই-লাইব্রেরী তৈরিতে উচ্চশিক্ষা দফতরও সহায়তা করতে পারে। এমনকি বিধানসভার সঙ্গেও বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের চুক্তিও করা যেতে পারে৷ সমস্ত নথির ইংরেজি অনুবাদ করলে তা আন্তর্জাতিক স্তরে সকলেই বুঝতে পারবেন৷ এজন্য প্রয়োজনে বিধানসভার কর্মী বাড়াতে হবে৷ বাংলাদেশের সরকার বা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে চুক্তি করেও তথ্যের আদান প্রদান করা যেতে পারে। বাংলা ভাষা বিশ্বে পঞ্চম ও এশিয়াতে দ্বিতীয় বৃহত্তম৷

Advertisement
---