স্টাফ রিপোর্টার, দার্জিলিং: তিনি সব পারেন। ভারতে তাঁর ইমেজ ভগবানের ঠিক পরেই। এবার, সেই ‘মহাশক্তিশালী’ ‘থ্যালাইভা’ রজনীকান্তের শরণাপন্ন হলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও৷ দার্জিলিংকে ভারতের দরবারে হাজির করে দেবার আর্জি নিয়ে৷

কার্শিয়াং ও দার্জিলিং এ চলছে ‘কালা’ রজনীর একটি সিনেমার শুটিং৷ তাঁর একটি বহুভাষিক ছবির শুটিং এর জন্য জুন মাসের ৬ তারিখে দার্জিলিং পাহাড়ে পৌঁছান ‘থালাইভা’। তবে গত কয়েকদিন তিনি সংবাদমাধ্যমের ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলেন। দার্জিলিংয়ে আসার আট দিনের মাথায় গতকাল সংবাদমাধ্যমের সামনে হাজির হলেন তিনি।

- Advertisement -

এর মধ্যেই বৃহষ্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব সৌজন্য সাক্ষাত করেন রজনীর সঙ্গে৷ এদিন সকাল থেকেই পাহাড় ছিল কুয়াশাচ্ছন্ন। মাঝেমধ্যে বৃষ্টি। ফলে শুটিং সেইভাবে সম্ভবহয়নি। যদিও সকালের দিকের কয়েকটি মুহূর্ত ক্যামেরা বন্দী হয়েছিল বলে জানা গেছে।

এদিকে ৬ ই জুন বাংলার পাহাড়ে আসার পর বৃহষ্পতিবারই কার্শিয়াং থেকে প্রথম দফার শুটিং শেষ করে দার্জিলিং পৌঁছান তামিল সুপারস্টার। সেখানে মাউন্ট হারমন স্কুলে ও সেন্ট পলস স্কুলে তাঁর ফিল্মের শুটিং হওয়ার কথা। এর পর ফের কার্শিয়াং এ ফিল্মের দ্বিতীয় দফার শুটিং হবার কথা৷

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর নির্দেশে এদিন পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব কার্শিয়াং এ হাজির হন। সেখানে এলিটা রিসর্টে গিয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন রজনীকান্তের সঙ্গে। রাজ্যের তরফে রজনীকে স্বাগত জানিয়ে তাঁর হাতে ফুলের তোড়া ও উপহার তুলে দেন মন্ত্রী। এরপর রজনীকান্তের সঙ্গে একান্তে বেশ কিছুক্ষণ কথাও বলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর বার্তা তিনি জানান সুপারস্টারকে৷

সাক্ষাৎপর্ব শেষে গৌতম দেব সংবাদমাধ্যমের সামনে এসে বলেন, ‘রজনীকান্তের সঙ্গে খুব ভাল কথা হয়েছে। পাহাড় বেশ ভালো লেগেছে তাঁর। ছবির শুটিংয়ের ক্ষেত্রে সমস্ত রকম সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে তাঁকে। এছাড়া আগামীদিনে যাতে আরও বেশি সংখ্যায় দক্ষিণী ছবির শুটিং দার্জিলিংয়ে হতে পারে, সে বিষয়টি নিয়েও আশ্বাস দিয়েছেন রজনীকান্ত’৷

গৌতম দেব জানান, রজনীকান্ত দার্জিলিং নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন। রজনী জানিয়েছেন, দার্জিলিং পাহাড় একটা অসাধারণ জায়গা ও দূর্দান্ত একটা শুটিং এর স্পট। গৌতম দেব তাঁকে জানান, এখানে আরাধনা, বরফি, অনুসন্ধান, ম্যায় হূ না, এর মত সিনেমার শুটিং হয়েছে।

এদিকে রজনীকান্তও প্রথমবার বাংলায় শ্যুটিং করতে এসে বাংলার পাহাড় দেখে মুগ্ধ৷ তিনি আরও জানিয়েছেন, রামকৃষ্ণ পরমহংস, বিবেকানন্দ, সুভাষচন্দ্র বোস এবং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জায়গায় এসে আমি অভিভূত৷ এতো ভালো শ্যুটিং স্পট গোটা ভারতবর্ষেই খুব কম আছে৷

জানা গেছে, পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব দক্ষিণের সুপারস্টারকে আর্জি জানান যে, তাঁর দার্জিলিং পাহাড়ে শুটিং এর অভিজ্ঞতার কথা সবাইকে বলতে। যাতে আরও বেশি সংখ্যায় হিন্দী ও দক্ষিণী ফিল্মের শুটিং বাংলার এই পাহাড় অঞ্চলে হতে পারে।

অন্যদিকে সম্প্রতি নিজের নতুন দল গড়েছেন রজনীকান্ত। আর মমতাও লোকসভা ভোটে ফেডারেল জোট গড়ার পক্ষে। বৈঠকে রাজনীতি নিয়ে কোন কথা হয়েছে কি? প্রশ্ন ছিল৷ তবে, রাজনীতি নিয়ে তাঁদের কোন কথা হয় নি বলেই জানিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব।

এখন ‘সব সমস্যার চটজলদি সমাধান’, ‘থ্যালাইভা’ রজনীকান্তের হাত ধরে বাংলার পাহাড় কতটা ভারতের বাজারে নাম করতে পারে সেটাই এখন দেখার৷ তবে, রজনীকে ধরে মমতার উদ্দেশ্য কিছুটা হলেও সফল হলে তা বাংলা তথা পাহাড়বাসীর যে যথেষ্ট উপকারে আসবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না৷

----