সৃজিতের ক্যামেরায় আবার চৈতন্য যীশু

কলকাতা: ঋতুপর্ণ যে গুপ্তধনের সন্ধান দিয়ে গিয়েছে সিনেদুনিয়াকে, তাই ভাঙিয়ে চলেছেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়। প্রতিবার নব নব রূপে তাঁর ক্যামেরায় ধরা পড়ছেন যীশু সেনগুপ্ত। এবারের অবতার চৈতন্য। সিনেমার নাম ‘গৌরঙ্গ ইতিকথা

সৃজিতের সঙ্গে এবার পুরনো দিনে ফিরছেন নায়ক। ছোট পর্দায় ‘মহাপ্রভু’ দিয়েই যিশুর কেরিয়ারের শুরু। আর কেরিয়ারের পিক সময় আবার ফিরছেন চৈতন্যে। নেপথ্যে প্রযোজক রানা সরকার। যিনি ‘মহাপ্রভু’রও প্রযোজক ছিলেন। রানার হাত ধরে এবার বড়পর্দায় আসছেন চৈতন্য। সৃজিতের কথায়, ” রানার সঙ্গে আমার ‘নটি বিনোদিনী’ করার কথা ছিল। কিন্তু কাকে বিনোদিনী করব! সেটা ভেবে পাচ্ছি না। শেষে ওই পরামর্শ দিল চৈতন্য নিয়ে কাজ করার। চৈতন্যের সামাজিক আর ভক্তিমূলক দিক ছাড়া বাকি কিছু নিয়ে বিশেষ ধারণা ছিল না। রানার আবার এ বিষয়ে প্রচুর জ্ঞান। যেগুলো শুনে আমার ফ্যাসিনেটিং লাগল। তাই আর দেরী করলাম না।”

তবে ‘গৌরাঙ্গ ইতিকথা’ চৈতন্য দেবের জীবন চিত্র নয়া। এই ছবিতে মূলত চৈতন্যর মধ্যবয়সটাই দেখানো হবে। যে পর্বে থাকবে চৈতন্যর সামাজিক-রাজনৈতিক চিন্তাধারা থেকে শুরু করে তাঁর মৃত্যু নিয়ে রহস্য। পিরিয়ড পিসটি লিখছেন শিবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। এই প্রথম সৃজিত অন্যকারও লেখায় পরিচালনা করবে।

আরও পড়ুন: স্ত্রীয়ের সঙ্গে লিপ লকে ঝড় তুললেন বিগ বস কনটেস্টেন্ট

এদিকে চিত্রনাট্য না পড়েই অভিনয়ের জন্য রাজি হয়ে গিয়েছে যীশু। তিনি বলেন, “সৃজিতের ছবি, সেটাই যথেষ্ট আমার কাছে। আর চৈতন্য নিয়ে আমার নস্ট্যালজিয়া তো আছেই।” যদিও সৃজিতের এই ছবিতে যীশুকে নেওয়া নিয়ে উঠছে পক্ষপাতীতের প্রশ্ন। কিন্তু পরিচালকের সাফ কথা, “যে চরিত্রের জন্য যাকে মানানসই মনে হয় তাকেই নিই। আর চৈতন্যের ভূমিকায় দর্শকের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে এমন কাউকেই নিতে হতো।”

আরও পড়ুন: সোনম-করিনার মিউজিক ভিডিওতে ‘অশ্লীলতা’ দেখানো হয়েছে!

যিশু ছাড়া বাকি চরিত্রের কলাকুশলী এখনও ঠিক হয়নি। সিনেমার শুটিং শুরু হবে শীতে। পুরীতে ছবির একটা বড় অংশের শুট হবে।

---- -----