বনধের যানজটে হাসপাতালের পথেই মৃত্যু শিশুর

পাটনা: বনধের রাজনীতির গ্রাসে প্রাণ হারাল ২ বছরের এক শিশু। ঘটনাস্থল বিহারের জাহানাবাদ। অসুস্থ শিশুকে অটোতে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় যানজটের মধ্যে দীর্ঘ সময় আটকে থাকে অটোটি এবং এর জেরেই কার্যত বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু হয় শিশুটির। জাহানাবাদ সিভিল হাসপাতালের যাওয়ার কথা ছিল শিশুটির পরিবারের। যানজটের মধ্যে দীর্ঘ সময় আটকে থাকতে না হলে বাঁচানো যেতো তাদের সন্তানকে, এমনটাই অভিযোগ শিশুটির পরিবারের।

এদিকে মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম-কংগ্রেসের ডাকা ১২ ঘণ্টার বনধের জেরে এই শিশু মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে কংগ্রেসকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। তিনি বলেন,’প্রতিটি মানুষের প্রতিবাদ করার অধিকার রয়েছে, কিন্তু এর জেরে একটি দুবছরের শিশুর মৃত্যু ! রাহুল গান্ধীকে এর উত্তর দিতে হবে।’

এদিকে শিশুটির পরিবারের দাবিকে নস্যাৎ করে জাহানাবাদের জেলাশাসক পরিতোষ কুমার জানিয়েছেন,’শিশুটির মৃত্যুর সাথে বনধ বা যানজটের কোনও সম্পর্ক নেই, শিশুটির পরিবার বাড়ি থেকে বেরোতে দেরি করে’।

- Advertisement -

তবে বাম-কংগ্রেসের ডাকা ১২ ঘণ্টার এই বনধে বিহারের জীবন বেশ খানিকটা হলেও বিপর্যস্ত। পটনায় লোকতান্ত্রিক দলের সদস্যরা কাঁধে মোটরবাইক নিয়ে প্রতিনিয়ত বেড়ে চলা জ্বালানীর মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ করেন। বেশ কয়েকটি গাড়ি,বাস, বাইকে আগুন জ্বালিয়ে দেয় তারা। পুলিশের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হন অনেকে।

পটনা, গয়া, ভোজপুর, জাহানাবাদ, খাগারিয়া, মধুবনী, সাগারসা, বঙ্কা,ভাগলপুর,শেখপুরা এবং মুজ্জাফফপুর সহ আরও কয়েকটি স্টেশনে বেশ কিছু দূরপাল্লার ট্রেন ও প্যাসেঞ্জার ট্রেন বাতিল হয়েছে।

বেশ কিছু জায়গায় ট্যায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ করা হয়। বিহারে আরজেডি,বাম,হিন্দুস্তানী আওয়াম মোর্চা এবং পাপ্পু যাদবের জন অধিকার পার্টি এই বনধকে সমর্থন করেছে।

Advertisement ---
---
-----