গুরুংয়ের দায় নেবে না বিজেপি, সাফ জানালেন দিলীপ

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিমল গুরংয়ের ব্যাপারে বিজেপির কোনও অবস্থান নেই বলে জানালেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ শনিবার তিনি জানান, ‘‘বিমল গুরুং এবং তাদের পার্টি (গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা) পাহাড়ে আমাদের জোট-সঙ্গী৷ তাদের সঙ্গে নির্বাচন কেন্দ্রীক সমঝোতা আছে৷ যখন নির্বাচন আসে তখন আমরা বসে ঠিক করি, কখন কে কাকে সমর্থন করবে৷ এছাড়া তাদের পার্টির আদর্শ-কর্মপদ্ধতি আলাদা, আমাদেরও আলাদা৷ বাকি কোনও দায় আমাদের নেই৷’’

দিলীপের এই মন্তব্যের পরই জল্পনা শুরু হয়েছে যে, দার্জিলিংয়ে মোর্চা এতদিন গুরুংয়ের নেতৃত্বে যা ‘কু-কীর্তি’ করে এসেছে, তা পর্যবেক্ষণ করার পরই তার দায় মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলতে চাইছে বিজেপি৷ পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে বিমল গুরুংকে য়দি রাজ্যের পুলিশ গ্রেপ্তার করে, তা দলের ভাবমূর্তি খারাপ করতে পারে৷

এদিন সাংবাদিকরা বিজেপির রাজ্য সভাপতিকে প্রশ্ন করেন, গুরুং গ্রেপ্তার হলে বিজেপি তার পাশে থাকবে? দিলীপের সাফ জবাব, ‘‘গ্রেপ্তার হলে কীভাবে হবে, কোর্ট কী রায় দিচ্ছে … সেটাতো ভবিষ্যতের ব্যাপার৷ কোনও ঘটনা ঘটলে তার পরিপ্রেক্ষিতে বিচার করব৷’’

- Advertisement -

মোর্চার কাঁধে ভর করেই পাহাড়ে লোকসভা নির্বাচন জিতেছিল বিজেপি৷ এরপর গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে হিংসাত্মক আন্দোলন শুরু করে মোর্চা৷ দার্জিলিংয়ে কয়েক মাসের সেই অচলাবস্থা পাহাড়ের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকেই ভেঙে দেয়৷ এরপর গুরুংয়ের বিরুদ্ধে মামলা শুরু করে রাজ্য৷ রাজ্যের পুলিশের সঙ্গে গুরুং-বাহিনীর সংঘর্ষে নিহত হয় পুলিশ কর্মী৷ এরপর বিমল গুরুংয়ের আইনজীবীরা ‘তাঁর বিরুদ্ধে রাজ্য সরকার উদ্দেশ্যপ্রণদিত ভাবে দমনমূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে’ এই অভিযোগ তুলে সর্বচ্চ আলাদতের দ্বারস্থ হন৷ শুক্রবারই, গুরুংকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট৷

দিলীপের মতে, ‘‘দেখুন আদালতে মামলা চলে৷ পক্ষে-বিপক্ষের উকিলরা মতামত দেয়৷ আদালতের ব্যাপার, আদালতেই নিষ্পত্তি হবে৷ আদালত যে রায় দেবে তা মেনে নেওয়া উচিত৷ আমাদের রাজ্য সরকার বা (মুখ্যমন্ত্রী) মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মানসিকতা আছে … (তাঁরা যা করবেন) সবটাই ঠিক৷ তাই সিবিআই’য়ের কাজে সন্দেহ প্রকাশ করা, সুপ্রিম কোর্টের কাজে সন্দেহ প্রকাশ করা, কেবল নিজের পক্ষেরটাই ঠিক…৷ গণতন্ত্রে যে কাজ হচ্ছে তাকে মেনে নেওয়া উচিত৷ যদি কেউ অন্যায় করে থাকে, তার সাজা পাওয়া উচিৎ৷’’

সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন কুমার চামলিঙের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠকে দুই রাজ্যের ডিজি’রাও উপস্থিত ছিলেন৷ সেই প্রসঙ্গে দীলিপ বলেন, ‘‘এক সময় এই রকম ধারণা ছিল, গুরুং সিকিমে লুকিয়ে আছেন৷ তাকে ধরতে পারছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার৷ আমি জানিনা দুই মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে কী কথা হয়েছে৷ স্বাভাবিক ভাবেই কোর্টের রায় দুই রাজ্যকেই মেনে চলতে হবে৷ গুরুং সিকিমে আছেন তার কোনও নিশ্চয়তা নেই৷’’

বিজেপির রাজ্য সভাপতি আরও বলেন, এখন প্রাক্তণ আই পি এস অফিসার ভারতী ঘোষকে গ্রেপ্তার করার চেষ্টা হচ্ছে৷ উনি কোথায় আছে কেউ জানে না৷ একটা ব্যাপার এখানে হচ্ছে যে, যতদিন কেউ সরকারের সঙ্গে থাকবেন ততদিন থাকতে পারবেন৷ তারপর আর তাকে কেউ থাকতে দেবে না৷ এরকম ঘটনাই আমরা পশ্চিমবাংলায় দেখতে পাচ্ছি৷ বাকি ভবিষ্যত বলবে৷

Advertisement
----
-----