বেহাল সেতু মেরামতের দাবিতে পথ অবরোধ বিজেপির

স্টাফ রিপোর্টার, চুঁচুড়া: সমগ্র রাজ্যের বেহাল সেতু মেরামতের দাবিতে আন্দোলনে নামল ভারতীয় জনতা পার্টি। অবিলম্বে রাজ্যের সকল সেতুতে সব ধরণের যান চলাচলের উপযুক্ত করে তোলার দাবিতে পথ অবরোধ করল হুগলী জেলা বিজেপি নেতৃত্ব।

গ্ণজ্ঞা নদীর উপরে অবস্থিত ঈশ্বর গুপ্ত সেতু নদীয়া জেলা এবং হুগলী জেলার সংযোগকারী সেতু। দক্ষিণেশ্বর এবং বালির মাঝামাঝি বিবেকানন্দ সেতুর উত্তরে প্রায় ৬০ দূরে অবস্থিত এই সেতু সড়ক পরিবহণের ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরেই এই সেতুর অবস্থা খুবই শোচনীয়।

বেহাল ঈশ্বর গুপ্ত সেতু

২০১৬ সালে যানবাহনের চাপে বসে যায় এই সেতুর দু’টি পিলার। এরপরে সম্পূর্ণভাবে ওই সেতু দিয়ে যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছিল প্রশাসন। মাস ছয়েক পর খুলে দেওয়া হলেও চাপানো হয়েছি একগুচ্ছ নিষেধাজ্ঞা। ভারি যান বিশেষ করে পণ্যবাহী যান চলাচল সম্পূর্ণভাবেই নিষিদ্ধ। স্থানীয় বিজেপি নেতাদের অভিযোগ, নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নিয়মিত ভারি যান চলাচল করে ঈশ্বর গুপ্ত সেতুর উপর দিয়ে। রাতের অন্ধকারে পুলিশের মদতেই চলে এই অপকর্ম।

- Advertisement -

আরও পড়ুন- ‘বিজেপি সরকার দেশটাকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছে’

এরই প্রতিবাদে রবিবার ওই সেতু সংলগ্ন রাস্তা অবরোধ করে বিজেপি। যার নেতৃত্বে ছিলেন স্থানীয় বিজেপি নেতা সুরেশ সাউ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন হুগলী জেলা বিজেপির নেতা নিমাই দত্ত, রাজ্য নেত্রী বৈশাখী মণ্ডল এবং অন্যান্য নেতা কর্মী। সুরেশ সাউ বলেন, “এই সেতুর অবস্থা ভালো নয়। বিষয়টি সম্পর্কে সকলেই অবগত। সরকারি নির্দেশিকা উড়িয়ে রাতের অন্ধকারে এই সেতুর উপর দিয়ে ভারি গাড়ি যাতায়াত করে। সম্পূর্ণটাই চলে পুলিশের একাংশের মদতে।”

শনিবারেই রাজ্য প্রশাসনের সদর দফতর নবান্ন থেকে সেতুর উপর দিয়ে গাড়ি চলাচল সম্পর্কে নয়া নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। সেখানে রাজ্যের বহু সেতুর উপর দিয়ে ভারি যান চলাচলের বিষয়ে জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। এই বিষয়ে বিজেপি নেতা সুরেশ সাউ বলেছেন, “এখন প্রশ্ন হচ্ছে ওই গাড়ি গুলো তাহলে কোন রাস্তা দিয়ে যাবে? অনেক গাড়িতে অন্য রাজ্য থেকে সব্জি আসে। ঘুরপথে গন্তব্যে পৌঁছালে বাড়বে পরিবহন খরচ। সেই চাপটা সাধারণ মানুষের উপরেই পড়বে।” সেতু সম্পর্কে রাজ্য সরকার উপযুক্ত নীতি নির্ধারণ না করলে ভবিষ্যতে আরও বড় আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন গেরুয়া নেতা সুরেশ।

আরও পড়ুন- বীর যোদ্ধার স্মরণসভায় জঙ্গি হানায় মৃত সাত

বিজেপি নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের হেরে এদিন সকালে ১১টা থেকে প্রায় আধ ঘণ্টা বন্ধ ছিল ঈশ্বর গুপ্ত সেতুর উপরে যান চলাচল। ছুটির দিন হলেও সংলগ্ন রাস্তায় আটকে যায় অনেক গাড়ি। সৃষ্টি হয় ব্যাপক যানজট। পড়ে পুলিশের হস্তক্ষেপে উঠে যায় অবরোধ।

ইশ্বর গুপ্ত সেতুর বেহাল দশা সম্পর্কে অবগত রয়েছেন প্রশাসনের কর্তারা। বেহাল সেতুর পাশেই অন্য একটি সেতুর অনুমোদন মিলেছে এবং খুব শীঘ্রই সেই সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন মহকুমা শাসক ইউনিস ইসমাইল।

Advertisement ---
---
-----