‘বিজেপিকে ভগবানও ক্ষমা করবে না’

প্রসেনজিৎ ধর, হুগলি: ফের বিজেপির মহিলা মোর্চার সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূলের বীরভূমের দাপুটে জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল৷

একই সঙ্গে তাঁর জোরালো অভিযোগ, ‘‘রামনবমীর মতো ধর্মীয় অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে বিজেপি রাজ্যের শিশুদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে হিংসা ছড়াতে চাইছে৷’’

আরও পড়ুন: শোভনের প্রেম-রোগের খোঁজ নিলেন দিদি

- Advertisement -

মঙ্গলবার হুগলির তারকেশ্বর মন্দিরে বাবা তারকনাথের কাছে স্বপরিবারে পুজো দিতে এসেছিলেন বীরভূমের দাপুটে তৃণমূল নেতা৷ সেখানেই তিনি এই অভিযোগ করেন৷

মন্দির থেকে পুজো দিয়ে বেরানোর সময় অনুব্রত বলেন, ‘‘রামনবমীর মতো ধর্মীয় অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে বিজেপি রাজ্য জু়ড়ে যা করল, তাতে ভগবানও ওদের ক্ষমা করবে না৷’’ রামনবমীতে বীরভূমের মাটিতে দলীয় মিছিলে হেঁটেছিলেন বিজেপি সভানেত্রী লকেট৷ ইতিমধ্যে রামপুরহাট পুলিশের তরফে লকেট চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলাও রুজু করা হয়েছে৷

সেই প্রসঙ্গেই লকেটের নামোল্লেখ করে অনুব্রতর তীব্র প্রতিক্রিয়া, ‘‘বীরভূমে অনেকগুলো পীঠ আছে৷ তারমধ্যে তারাপীঠ অন্যতম৷ বাদ বাকি পিঠে কোনও পাগলি আসতেই পারে। কিন্তু রাম তো অস্ত্র নিয়ে রাবণের বিরুদ্ধে লড়াই করেন নি৷ তিনি ধনুক নিয়ে লড়াই করেছিলেন৷’’ খানিক থেমে তাঁর সংযোজন, ‘‘আমার দাদু কিংবা ওঁর দাদু (লকেটের) কেউ রামকে দেখেননি৷ আমরা ইতিহাসে পড়েছি৷ কিন্তু রামকে নিয়ে বিজেপি যেভাবে শিশুদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে সেটা ঠিক না৷ ওদের এখন পড়াশোনা করার বয়স৷ রাম কখনও বলেনি অস্ত্র নিয়ে মিছিল করতে।’’ নিজস্ব ঢঙে লকেটের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন তুলেছেন, ‘‘ছোট্ট শিশুদের হাতে অস্ত্র তুলে দিলেন, লজ্জা করে না?’’

আরও পড়ুন: অনুব্রতর জেলায় কৌটো হাতে বিমান বসু

পঞ্চায়েত নির্বাচন দোড়গড়ায়৷ মুকুলহীন পালাবদলের রাজ্যে উঠছে গেরুয়া ঝড়৷ সাম্প্রতিক একাধিক উপনির্বাচনে অবিশ্বাস্যভাবে গেরুয়া শিবিরের ভোট বেড়েছে৷ স্বভাবতই, সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন পরিচালনা করতে ও গাজন মেলা উপলক্ষ্যে এদিন দুপুর ১টা নাগাদ তারকেশ্বর মন্দিরে বাবা তারকনাথের কাছে স্বপরিবারে পূজা দিতে আসেন অনুব্রত৷ তাঁর সঙ্গে ছিলেন তারকেশ্বর পুরসভার পুরপ্রধান স্বপন সামন্ত৷ বিকেল প্রায় সাড়ে চারটে পর্যন্ত মন্দির চত্বরেই ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ এই দাপুটে তৃণমূল নেতা৷ ভিআইপি লাইন দিয়ে ঢুকিয়ে তাঁদের বিশেষ পুজোর ব্যবস্থা করা হয়৷ এজন্য ২০ মিনিট বন্ধ রাখা হয়েছিল সাধারণ পুণ্যার্থীদের পুজো৷ মন্দির চত্বর ঘুরে দেখার সময়ই মন্দিরের আরও উন্নয়ন কীভাবে করা সম্ভব, তা নিয়ে পুরপ্রধানের সঙ্গে একপ্রস্থ আলোচনাও সেরে নেনে বীরভূমের দাপুটে জেলা সভাপতি৷

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের নির্বাচনের বাদ্যি বাজিয়ে ব্লকে ব্লকে পৌঁছাচ্ছে ব্যালট বাক্স

পরে দাবি করেন, ‘‘বিজেপি যত চেষ্টাই করুক না কেন, পঞ্চায়েত ভোটে তৃণমূলেরই জয় জয়কার হবে সর্বত্র৷’’ যদিও পাল্টা কড়া প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে লকেট বলেছেন, ‘‘এভাবে ওরা যদি লাগাতার আমাদের নামে মিথ্যে কুৎসা করে যায়, তাহলে আমরা আইনি পথে হাঁটতে বাধ্য হব৷ কারণ, রাজ্যের মানুষ জানেন – কারা রাজ্যে হিংসা ছড়াতে চাইছে, কারা মানুষের গণতন্ত্রর কণ্ঠরোধ করছে৷’’ দাবি করেছেন, ‘‘পায়ের তলার মাটি সরে যাচ্ছে বলেই মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর ভাইদের রাতের ঘুম উড়ে গিয়েছে৷ তাই ওরা উলটো পালটা বকছেন৷’’

Advertisement
---