পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মী খুনে পূর্বসূরির পথেই হাঁটলেন নবনিযুক্ত পুলিশ সুপার

স্টাফ রিপোর্টার, পুরুলিয়া: পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারের ঘটনায় খুনের অভিযোগকে নসাৎ করে দিল জেলা পুলিশ প্রশাসন৷ পুরুলিয়ার সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আকাশ মাগারিয়া রবিবার স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিলেন, ‘‘দুলালবাবুকে কেউ খুন করেননি৷ উনি আত্মহত্যাই করেছেন৷ ময়নাতদন্তের রিপোর্টে চিকিৎসকরা তেমনটাই জানিয়েছেন৷’’ তবে একই সঙ্গে সিআইডি তদন্ত চলবে বলেও জানিয়েছেন তিনি৷ এদিকে তিন দিনের ব্যবধানে দু দু’জন দলীয় কর্মী খুনের প্রতিবাদে এদিন বিজেপির ডাকা বনধে জেলার সিংহভাগ এলাকায় ব্যাপক প্রভাব পড়েছে৷

শনিবার পুরুলিয়ার বলরামপুরের ডাভা গ্রাম থেকে বিজেপি কর্মী দুলাল কুমারের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়৷ এর আগে গত ৩০ মে বলরামপুরের সুপুডি গ্রাম থেকে পাওয়া গিয়েছিল বিজেপি কর্মী ত্রিলোচন মাহাতোর ঝুলন্ত দেহ৷ বিজেপির তরফে অভিযোগ করা হয়, পঞ্চায়েতে পুরুলিয়ায় শাসকদল ধাক্কা খাওয়ার জেরেই ওরা হত্যালীলায় মেতেছে৷ শনিবার নিহত দুই কর্মীর বাড়িতে যান বিজেপি নেতা মুকুল রায়, রাজ্য সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন এক প্রতিনিধি দল৷ তাঁরাও অভিযোগ করেন, এলাকায় ভয় ভীতি তৈরি করতেই পরিকল্পিতভাবে একের পর এক বিজেপি কর্মীকে খুন করছে শাসকদল৷

যদিও প্রথম থেকেই শাসকদলের জেলা সভাপতি তথা পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো দাবি করে আসছিলেন, ‘‘বিজেপি ও বজরং দলের অন্তর্কলহের জেরেই এই ঘটনা৷’’ ওয়াকিবহাল মহলের মতে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট উল্লেখ করে শাসকদলের মন্ত্রীর দাবিকেই মানত্য দিল জেলা পুলিশ৷ নবনিযুক্ত জেলা পুলিশ সুপার আকাশ মাগারিয়া এদিন জানান, ‘‘দুলাল কুমারের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় ৫ জনের একটি চিকিৎসক দল গঠন করা হয়েছিল৷ তাঁরা ময়নাতদন্তের রিপোর্টে স্পষ্টভাবে লিখেছেন- খুন নয়, এটি আত্মহত্যার ঘটনা৷’’ তবে দুটি ঘটনাতেই সিআইডি তদন্ত চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন৷

- Advertisement -

দলীয় কর্মী খুনের ঘটনায় শনিবারই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেছিলেন, ‘‘সিআইডি তদন্তের নামে আইওয়াশ করা হচ্ছে৷’’ পুলিশ খুনের তথ্য কার্যত খারিজ করে দেওয়ার পর পুরুলিয়ার জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর দাবি, ‘‘দুলালবাবুকে খুনই করা হয়েছে৷ কোনও অবস্থাতেই উনি আত্মহত্যা করেননি৷ ওঁনাকে খুন করেছে তৃণমূলের লোকেরা৷ সিবিআই তদন্ত হলেই তা স্পষ্ট হয়ে যাবে৷’’ প্রসঙ্গত, দুলালবাবু খুনের ঘটনায় মাওবাদী যোগের তথ্য তুলে ধরা হয়েছিল নবান্ন থেকে৷ যদিও সেসময় জেলার পুলিশ সুপার আত্মহত্যার তথ্য তুলে ধরেছিলেন৷ ওয়াকিবহাল মহলের মতে, তারই জেরে রাতারাতি বদলি হতে হয় তাঁকে৷

এদিকে জেলায় তিনদিনের ব্যবধানে দু’জন দনীয় কর্মী খুনের ঘটনার প্রতিবাদে এদিন পুরুলিয়া জেলা জুড়ে বনধের ডাক দিয়েছিল বিজেপি৷ দক্ষিণ পুরুলিয়ার মানবাজার, পুঞ্চা, বান্দোয়ান বাদ দিলে সারা জেলাতেই বনধে ভালো প্রভাব পড়েছে৷ বলরামপুর এলাকার সমস্ত দোকান-বাজার বন্ধ রয়েছে৷ পুরুলিয়া শহরেও প্রতিবাদ মিছিল করেছেন বিজেপির নেতৃত্বরা৷ তবে বনধকে কেন্দ্র করে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সারা জেলাজুড়েই নজিরবিহীনভাবে ব্যাপক সংখ্যক পুলিশি মোতায়েন করা হয়েছে৷

Advertisement ---
---
-----