“দুই মাসের মধ্যে কর্ণাটকে সরকার গড়বে বিজেপি”

স্টাফ রিপোর্টার: আর মাত্র মাস দু’য়েকের অপেক্ষা। তারপরেই দক্ষিণের রাজ্য কর্ণাটকের ক্ষমতা দখল করবে বিজেপি। অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে এমনই দাবি করলেন বঙ্গ বিজেপি-র নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদী পরিচালিত এনডিএ সরকারের চার বছর পূর্তি উপলক্ষে দেশ জুড়ে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে পদ্ম শিবির। বঙ্গ বিজেপি আয়োজিত তেমনই একটি অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার দুর্গাপুরে হাজির ছিলেন জয়। সেখানেই বক্তব্য রাখতে গিয়ে কর্ণাটক নিয়ে ওই মন্তব্য করেন তিনি।

কর্ণাটকের বিধানসভা নির্বাচনে একক বৃহত্তম দল হিসেবে উঠে আসে বিজেপি। কিন্তু ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছাতে না পারায় একক সংখ্যাগরিষ্ঠ হতে পারেনি। সেই কারণে অধরা থেকে গিয়েছে সরকার গঠন। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়েই ওই রাজ্যে সরকার গঠন করেছে কংগ্রেস এবং জেডি(এস) জোট। সেই জোট সরকারের মেয়াদ এক মাস না যেতেই শুরু হয়েছে নানান প্রতিকূলতা। ক্ষমতার লোভে রাজধানী বেঙ্গলুরুতে বিক্ষোভও দেখা গিয়েছে।

সেই বিষয়টিকেই হাতিয়ার করেছেন বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। কর্ণাটকের জোট সরকারকে খিচুড়ি সরকারের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেছেন, “কর্ণাটকে সব বিরোধীরা হাত তুলে এক হয়েছে। ওখানে খিচুড়ি সরকার করেছে, কেন্দ্রেও তেমন করতে চাইছে।” এই ধরনের সরকারের স্থায়িত্ব বেশিদিনের নয় বলে দাবি করেছেন জয়। তাঁর কথায়, “অতীতেও আমরা অনেক খিচুড়ি সরকার দেখেছি। যেগুলোর কোনটাই দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। কর্ণাটকেও হবে না।”

এরপরেই তিনি দাবি করেন যে আগামী দুই মাসের মধ্যে কর্ণাটকের কংগ্রেস-জেডি(এস) জোট সরকার ভেঙে যাবে এবং বিজেপি ওই রাজ্যে সরকার গঠন করবে। নিজের বক্তব্যের সপক্ষে যুক্তি দিয়ে জয় বাবু বলেছেন, “জোট সরকারের সবাই বড় মন্ত্রী বা নেতা হতে চাইছে। এই কোন্দলের কারণেই জোট ভেঙে পড়বে।”

কর্ণাটক মডেলকে হাতিয়ার করে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে লড়াই করার প্রস্তুতি নিয়ে শুরু করেছে বিজেপি বিরোধী সকল রাজনৈতিক দল। সেই জোটের অন্যতম কাণ্ডারি হচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী তথা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বিষয়ে জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “আমি অত্যন্ত নিশ্চিতভাবে বলছি ২০১৯ সালে ফের কেন্দ্রে এনডিএ সরকার গঠিত হতে চলেছে। এবং সেই সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন নরেন্দ্র মোদী।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেন, “কিছু তোষামোদি মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রধানমন্ত্রীত্বের লোভ দেখাচ্ছে। আর সেই ভরসাতেই দিল্লি ছুটছেন তৃণমূল নেত্রী।”