স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: বোর্ড গঠনের আগেই বড়সড় ধাক্কা খেল বিজেপি। বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটি গ্রাম পঞ্চায়েতে বিজেপির টিকিটে জেতা ছয় পঞ্চায়েত সদস্য যোগ দিলেন তৃণমূলে। ফলে জেলায় সদ্য সমাপ্ত পঞ্চায়েত নির্বাচনে নিজেদের দখলে থাকা একটি গ্রাম পঞ্চায়েত হাত ছাড়া হল গেরুয়া শিবিরের।

মঙ্গলবার বাঁকুড়া শহরের মাচানতলা মুক্ত মঞ্চে বনধ বিরোধী এক সভায় উপস্থিত থেকে ওই ছয় বিজেপি সদস্য তৃণমূলে যোগ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। তাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূল জেলা সভাপতি অরুপ খাঁ। উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা, জেলা পরিষদের ‘বিদায়ী’ সভাধিপতি অরূপ চক্রবর্তী-সহ দলের জেলার নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন: ‘প্রয়োজনীয় শিক্ষকের দাবি জানানোতেই গুলি করে পুলিশ’

উল্লেখ্য, ১৬ আসনের গঙ্গাজলঘাটি গ্রাম পঞ্চায়েতে বিজেপি ৯টি ও তৃণমূল ৭ টি আসনে জয়লাভ করে। এবার বিজেপির টিকিটে জয়লাভ করা ছয় সদস্য তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় বোর্ড গঠনের আগেই পঞ্চায়েত দখল করে নিল শাসক দল। এখন তৃণমূলের ওই পঞ্চায়েত গঠন সময়ের অপেক্ষা।

তৃণমূল সূত্রে খবর, এদিন চঞ্চল নায়ক, সৌরভী সিনহা, সোনালী বাউরী, রীতা গোরক্ষী, শ্যামলী মাজি ও ঝর্ণা কুণ্ডু বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। ফলে ই পঞ্চায়েতে তৃণমূলের সদস্য সংখ্যা বেড়ে হল ১৩। মাত্র ৩ জন সদস্যকে নিয়ে এখন বিজেপিকে বিরোধী আসনেই বসতে হবে।

আরও পড়ুন: বদলে ফেলা হবে গোটা রেলটাকেই! ৩৬ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে এডিবি

সদ্য তৃণমূলে যোগ দেওয়া পঞ্চায়েত সদস্য চঞ্চল নায়ক সাংবাদিকদের কাছে দাবী করেন, সামান্য ভূল বোঝাবোঝি হয়েছিল। বিজেপির টিকিটে যারা জিতেছিলেন সবাই ‘বিক্ষুব্ধ তৃণমূল’। ঘরের ছেলেরা ঘরে ফিরে দলের হাত শক্ত করলো বলেই জানিয়েছেন তিনি।

বিজেপির ডাকা বাংলা বনধের আগের দিন জেলায় নিজেদের দখলে থাকা গ্রাম পঞ্চায়েত হাতছাড়া হওয়ায় লোকসভা ভোটের আগে অনেকটাই শক্তিক্ষয় হল বিজেপির। এমনটাই মনে করছেন জেলার রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ। একই সঙ্গে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে জঙ্গলমহলে বিজেপির দখলে থাকা গ্রাম পঞ্চায়েতগুলির ভবিষ্যৎ নিয়েও।

আরও পড়ুন: বন্ধ রুখতে ৪০০০-র বেশি পুলিশ থাকবে রাস্তায়

বিজেপির বাঁকুড়া জেলা সাংগঠনিক সভাপতি বিবেকানন্দ পাত্র বলেন, ‘‘গঙ্গাজলঘাটি এলাকা আমাদের দলের বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার মধ্যে পড়ছে। যতদূর খবর পেয়েছি ওই ছয় সদস্যকে ভয় দেখিয়ে নিজেদের দলে টেনেছে তৃণমূল। এভাবে বিজেপিকে আটকানো যাবে না৷ সেকারণে প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে বোর্ড গঠনের দিন ঠিক করেও তা বাতিল করা হয়েছে।’’

তাঁর অভিযোগ, ‘‘নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধির জন্য শাসকদল প্রশাসনকে কাজে লাগাচ্ছে৷ মানুষ বিজেপিকে ভোট দিয়েছেন। ওই ছ’জন যারা তৃণমূলে গেলেন তাদের মানুষ ভোট দেননি।’’

আরও পড়ুন: সাফাই কর্মীদের কাজের আধুনিক করার দাবি বারাকপুরে

গঙ্গাজলঘাটির ঘটনার কোন প্রভাব কি জঙ্গল মহলে বিজেপির দখলে থাকা গ্রাম পঞ্চায়েত গুলিতে পড়বে? এই প্রশ্নের উত্তরে বিবেকানন্দ পাত্র বলেন, ‘‘সেরকম কোনও সম্ভাবনাই নেই। ওই ধরনের ভয় দেখিয়ে দল ভাঙ্গাতে চেষ্টা করলে মানুষই তার জবাব দেবেন৷’’

আরও পড়ুন: ফুটবল ম্যাচ ঘিরে স্কুলে সংঘর্ষের জেরে আহত তিন

--
----
--