পূর্ব বর্ধমান: বছর দুই আগে খুন হয়েছিলেন স্বামী৷ স্ত্রীরও রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার হল বৃহস্পতিবার সকালে৷ আর এই ঘটনা শোরগোল ফেলে দিয়েছে কাটোয়া শহরে৷ মৃতের নাম রিঙ্কু দাস (৪২)৷ জোর জল্পনা, একাধিক পুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েই প্রাণ দিতে হল রিঙ্কুকে৷

আরও পড়ুন: #Metoo: এবার বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ

Advertisement

বৃহস্পতিবার সকালে কাটোয়া শহরে বাড়ি থেকেই উদ্ধার হয় রিঙ্কুদেবীর রক্তাক্ত দেহ৷ কী কারণে এই ঘটনা তা নিয়ে তদন্ত করছে পুলিশ৷ তারা এখনই কোনও মন্তব্য করতে নারাজ৷ এদিন বিকেল পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনও অভিযোগও দায়ের হয়নি কাটোয়া থানায়৷

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বছর দু’য়েক আগে রিঙ্কু দাসের স্বামী সন্তোষ দাসও খুন হয়েছিলেন। কিন্তু কেন এই খুন৷ কারা যুক্ত আজও তার কোনও কিনারা হয়নি৷ একটি আশ্রম থেকে তাঁর দেহ উদ্ধার হয়। রিঙ্কুদেবীর দুই ছেলে। তাঁরা কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন। গত রবিবার ছিল তাঁর ছোট ছেলে সুজনের জন্মদিন। জন্মদিনের অনুষ্ঠানে শেষে সে মামারবাড়ি পূর্বস্থলীতে চলে যান৷

প্রতিবেশীরাই বৃহস্পতিবার সকালে রিঙ্কু দাসকে দেখতে না পেয়ে তাঁর ঘরের দরজার সামনে গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন তিনি৷ পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে৷ রিঙ্কুদেবীকে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে বলে পুলিশের অনুমান৷

আরও পড়ুন: বড়সড় পাইথন এলাকায়, আতঙ্কে পিটিয়ে মারল গ্রামবাসীরা

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, স্বামী মারা যাওয়ার পর রিঙ্কুদেবী বিড়ি বাঁধার কাজ করতেন৷ তাঁর কাছে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রকমের লোকও আসা যাওয়াও করতেন। সেই সূত্র ধরেই তাঁকে খুন করা হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখছে কাটোয়া থানার পুলিশ৷

https://youtu.be/Xw8rwpOe6lw

----
--