কাজান: শুক্রবার রাতে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি বেলজিয়াম-ব্রাজিল৷ দুই দলের শেষ চার সাক্ষাতে তিনটি জয় পেয়েছে ব্রাজিল৷ তিতের কোচিংয়ে শেষ ১৬ ম্যাচে অপরাজিত রয়েছে ব্রাজিল৷ কোয়ার্টার ফাইনালের আগে ২২ ম্যাচে হার হজম করেনি বেলজিয়ামও৷ তবে একে অপরের বিরুদ্ধে লড়াই অবশ্য এগিয়ে থাকে শুক্রবার কাজান এরিনায় নামবে ব্রাজিল৷ তবে গুরুত্বপূর্ণভাবে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যায় থেকে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত সবকটি ম্যাচ জিতে রয়েছে বেলজিয়াম৷

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে পানামাকে ৩-০ হারায় বেলজিয়াম৷ পরের ম্যাচে তিউনিশিয়াকে ৫-২ ও ইংল্যান্ডকে ১-০ ব্যবধানে হারায় রবের্তো মার্টিনেজের দল। শেষ ষোলোয় জাপানের বিরুদ্ধে ০-২ পিছিয়ে থেকে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ৩-২ গোলের জয় তুলে নেয় ইউরোপের দলটি। গ্রুপ লিগ এবং প্রি-কোয়ার্টার মিলিয়ে এখনও তিনটি জয় পেয়েছে ব্রাজিল৷ সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে ১-১ ড্র দিয়ে বিশ্বকাপ সফর শুরু করার পর টানা তিন ম্যাচ জিতেছে ব্রাজিল৷ পরপর তিন ম্যাচে ক্রোয়েশিয়া, সার্বিয়া এবং শেষ ষোলোর লড়াইয়ে মেক্সিকোকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়েছে ব্রাজিল৷

Advertisement

তবে এ নিয়ে বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বার মুখোমুখি হতে চলেছে ব্রাজিল-বেলজিয়াম৷ তাও আবার ১৬ বছর পর৷ ২০০২ বিশ্বকাপে শেষ ষোলোর লড়াইয়ে রেড ডেভিলসদের ২-০ হারিয়েছিল সেলেকাওরা৷ প্রথমার্ধ গোল শূন্য থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধে রিভাল্ডো ও রোনাল্ডোর গোলে জয় পায় ব্রাজিল৷

পুতিনের দেশে বিশ্বকাপের আগের তিন বিশ্বকাপের মধ্যে দু’বার কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছিল ব্রাজিল৷ ২০১৪ সালে নিজেদের মাটিতে সেমিফাইনালের লড়াইয়ে গতবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানির কাছে লজ্জাজনকভাবে সাত গোল খেয়ে বিশ্বকাপ সফর শেষ করেছিল সেলেগাওরা৷ ২০০৬ এবং ২০১০ বিশ্বকাপের মূলপর্বে কোয়ালিফাই করতে পারেনি বেলজিয়াম৷ ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াইয়ে আর্জেন্তিনার কাছে ০-১ হেরে বিশ্বকাপ সফর শেষ করেছিল তারা৷ স্বভাবতই এবার কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াই জিততে মরিয়া মার্টিনেজের দল৷ অন্যদিকে বিশ্বকাপ জিতে গতবারের সাত গোলের লজ্জা মুছে ফেলতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলও৷

----
--