নেইমার জাদুতে কোয়ার্টারে ব্রাজিল

সামারা: মেক্সিকান ওয়েভকে থামিয়ে দিয়ে বিশ্বকাপে শেষ আটে ব্রাজিল৷ কোনও অঘটন ঘটতে না দিয়ে ২-০ জয় ছিনিয়ে নিল তিতের দল৷ ম্যাচের প্রথমার্ধ ম্যাড়ম্যাড়ে হলেও সাম্বার ছন্দ দেখা গেল দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই৷

৫১ মিনিটে নেইমারের গোলে ১-০ এগিয়ে যায় ব্রাজিল৷ চলতি বছরে দেশে ও ক্লাবের জার্সিতে এ নিয়ে ১৬টি ম্যাচেে ১৫টি গোল করলেন ব্রাজিলীয় তারকা৷ ম্যাচের শেষ মুহূর্তে অর্থাৎ ৮৮ মিনিটে দলের দ্বিতীয় গোলে তাঁর অবদান৷ নেইমারের পাশ থেকে গোল করে ব্যবধান ২-০ করে মাত্র আট মিনিট আগে মাঠে নামা ফিরমিনো৷ সুন্দর বোঝাপোড়ায় মেক্সিকান ডিফেন্স ভেদ করে গোলকিপার ওচোয়াকে পরাস্ত করে জয় নিশ্চিত করে নেইমার-ফিরমিনো জুটি৷

ম্যাচের শুরু থেকেই ব্রাজিল রক্ষণকে বারবার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছিলেন লোজানোরা৷ তবে বল নিয়ে গোলের কাছাকাছি পৌঁছেও জালে বল জড়াতে পারেননি মেক্সিকান ফুটবলাররা৷ বল ও জালের দূরত্ব ঘোচাতে অনেকবারই ব্যর্থ হন লোজানোরা৷ যদিও প্রথমার্ধে বল পজিশনে ব্রাজিলিয়ানদের থেকে এগিয়ে ( ৫১%) ছিল মেক্সিকো৷

- Advertisement DFP -

প্রথমার্ধের শুরুর দিকে মেক্সিকান রক্ষণের বাধা কাটাতে ব্যর্থ হন নেইমাররা৷ কিন্ত পরে মেক্সিকান তরঙ্গ ভেদ করতে সক্ষম হলেও ওচোয়ার দস্তানাকে পরাস্ত করতে পারেনি ব্রাজিলীয় খেলোয়াড়রা৷ ২৪ মিনিটে দারুণ দক্ষতায় বল নিয়ে গোলপোস্টের কাছে পৌঁছে যান নেইমার৷ ডানদিক থেকে তাঁর নেওয়া শট আটকে দেন মেক্সিকান গোলকিপার৷ দু’মিনিট পর বল পেয়ে উড়িয়ে মারেন কুটিনহো৷ এরপর অবশ্য মেক্সিকান রক্ষণ ভাঙতে থাকেন সাম্বা ফুটবলাররা৷ তবে কৃতিত্ব দিতেই হয় মেক্সিকান গোলকিপার ওচোয়াকে৷ ৩৩ মিনিটে জেসুসের দ্রুতগতির শট রুখে দেন তিনি৷ ৪২ মিনিট ব্রাজিলে মার্সেলোর পরিবর্তে এদিন মাঠে নামা ফিলিপ লুইসকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি৷ গোল শূন্য থাকে ম্যাচের প্রথমার্ধ৷

দ্বিতীয়ার্ধে শুরুতেই ম্যাচের গতি নিয়ন্ত্রণ করতে থাকে সেলেকাওরা৷ ৫০ মিনিটে মেক্সিকানদের শক্ত রক্ষণে ফাটল ধরান নেইমার৷ উইলিয়ানের পাস থেকে অনবদ্য গোল করেন নেইমার৷ যদিও গোলপোস্টের খুব কাছ থেকে উইলিয়ানের বাড়িয়ে দেওয়া বলের দখল নেওয়ার জন্য একসঙ্গে ঝাঁপিয়ে ছিলেন জেসুস এবং এন টেন৷ তবে ব্রাজিলের প্রথম গোলটি আসে নেইমারের পা থেকে৷

ম্যাচের প্রথমার্ধটা মেক্সিকানদের হলে দ্বিতীয়ার্ধটা অবশ্যই ব্রাজিলের৷ পার্থক্য একটাই ম্যাচের প্রথমার্ধে একাধিক সুযোগ পেয়েও গোলমুখ খুলতে পারেননি লোজানোরা৷ দু’টি গোল হজম করলেও প্রসংশা আদায় করে নেন মেক্সিকান গোলরক্ষক গিলারমো ওচোয়া৷ ম্যাচে আটটি সেভ করেন তিনি৷ এর আগে গ্রুপ লিগে জার্মানির বিরুদ্ধে ৯টি সেভ করে চলতি বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি গোল বাঁচানোর নজির রয়েছে তাঁরই দখলে৷ শুক্রবার দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে বেলজিয়াম ও জাপান ম্যাচের জয়ীর বিরুদ্ধে শেষ চারে ওঠার লড়াইয়ে নামবে ব্রাজিল৷

Advertisement
----
-----