চিনের বাড়াবাড়ির মধ্যেই বাংলায় পৌঁছে গেল C-130J মিলিটারি হারকিউলিস এয়ারক্র্যাফট

নয়াদিল্লিঃ  ডোকালাম ইস্যুতে কার্যত উত্তপ্ত হচ্ছে সীমান্ত। সীমান্তের দুপারে কার্যত যুদ্ধের পজিশনে রয়েছে ভারত এবং চিনের সেনাবাহিনী। উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যেই পানাগড়ে পৌঁছে গেল C-130J মিলিটারি হারকিউলিস এয়ারক্র্যাফট। পূর্ব ভারতের বায়ুসেনা ঘাঁটিগুলির মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ পানাগড় স্টেশন।

চিনের বাড়াবাড়ির যোগ্য জবাব দিতে রাজ্যের পানাগড় স্টেশনকে বাড়তি নজর দিচ্ছে ভারতীয় বায়ুসেনা। অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমানের স্কোয়াড্রোন রাখা থেকে মাউন্টেন স্ট্রাইক ফোর্স সব কিছুই রাখা রয়েছে পানাগড়ে। এবার এখানে চলে এল C-130J মিলিটারি হারকিউলিস এয়ারক্র্যাফটও।

বায়ুসেনা সূত্রে খবর, আপাতত দুটি এই শ্রেণির বিমান আনা হয়েছে পানাগড়ে। চলতি মাসের আরও ছটি C-130J মিলিটারি হারকিউলিস এয়ারক্র্যাফট আসতে চলেছে পানাগড়ে। মূলত চিনের যে কোনও হুঁশিয়ারির জবাব দেওয়ার জন্যে একেবারে ছটি এয়ারক্র্যাফটের হ্যাঙ্গার তৈরি করবে বায়ুসেনা।

- Advertisement -

C-130J মিলিটারি হারকিউলিস এয়ারক্র্যাফট মূলত মাউন্ট স্ট্রাইকের জওয়ানেরা ব্যবহার করে থাকে। মূলত চিনকে ঠেকানোর জন্যে এই স্পেশাল ফোর্স তৈরি করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। যারা উঁচু পাহাড়ে খুব সহজে চড়ে চিনের সঙ্গে লড়াই করবে। প্রায় ৪০ হাজার সেনাকে নিয়ে তৈরি হয়েছে এই ফোর্স।

একটি ফোর্সের এই ভাগকে পানাগড়েই রাখা হয়েছে। কারণ হঠাত চিনের হামলা হলে বাংলার এই ঘাঁটি থেকে খুব দ্রুত সীমান্তে পৌঁছে দেওয়া যাবে সেনাবাহিনীকে। ব্যবহার করা হবে C-130J মিলিটারি হারকিউলিস এয়ারক্র্যাফটকে। আর এই জন্যেই পানাগড় স্টেশনকে এখন ঢেলে সাজাচ্ছে বায়ুসেনা।

Advertisement ---
---
-----