নয়াদিল্লি: বাঁধ নিরাপত্তা নিয়ে নানা পরিকল্পনা চলছিলই৷ এবার সেই বিলকেই স্বীকৃত করল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা৷ বুধবার ক্যাবিনেটে স্বীকৃতি পেল ড্যাম সেফটি বিল৷ এর ফলে প্রত্যেক রাজ্যের বাঁধ প্রকল্পগুলির নিরাপত্তায় বিশেষ নজর পড়বে৷

বাঁধ নিরাপত্তায় নজর দিতেই এই বিশেষ বিল৷ দেশের বেশিরভাগ রাজ্যেই বাঁধ প্রকল্পগুলির নিরাপত্তা প্রশ্নের মুখে৷ কোথাও ঢিলেঢালা পরিকাঠামো, কোথাও গোড়াতেই গলদ৷ প্রত্যেক বাঁধের খুটিনাটি বিচার করে সেই ভাবে ঢেলে সাজাতেই এই বিশেষ বিল৷ যেখানে গুরুত্ব পাবে বাঁধের নির্মাণ, জলজ প্রাণীর নিরাপত্তা, বাঁধ কর্মীদের নিরাপত্তাসহ বেশ কয়েকটি বিষয়৷ মূলত, বাঁধ পরিদর্শন, রক্ষণাবেক্ষণের উপর ভিত্তি করেই গোটা নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হবে৷ বিল অনুসারে বাঁধ সুরক্ষায় গঠিত হবে একটি জাতীয় কমিটি৷ জাতীয় বাঁধ সুরক্ষা কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে গোটা বিষয়টি পরিচালিত হবে৷

Advertisement

বিল অনুসারে প্রত্যেক রাজ্য বাঁধ সুরক্ষা সংক্রান্ত সমস্ত রিপোর্ট দেবে জাতীয় কমিটিকে৷ সেই রিপোর্টের ভিত্তিতে বাঁধ সুরক্ষা খতিয়ে দেখা হবে৷ দেশজুড়ে মোট ৫২০০ বাঁধ রয়েছে৷ এর মধ্য ৪৫০টি বাঁধের সংস্কারের কাজ চলছে৷ এর মধ্যে মাঝারি ও ছোটা বাঁধ রয়েছে প্রায় হাজাক খানেক৷ বিল অনুসারে এই সমস্ত নদী বাঁধের দায়িত্বে থাকবে জাতীয় কমিটি৷ বাঁধ থেকে কতটা জল ছাড়া হবে, সেই সিদ্ধান্তও জাতীয় কমিটি নেবে৷

বেশিরভাগ রাজ্যের বাঁধ প্রকল্পগুলিতে পরিকাঠামোগত অভাব চোখে পড়ে৷ কেন্দ্র ও রাজ্যের মধ্যে সমন্বয়ের অভাবও লক্ষ্য করা যায়৷ রাজ্যের দেওয়া রিপোর্ট অনেক সময় খতিয়ে দেখা হয় না৷ আবার রাজ্যেরও রিপোর্ট তৈরিতে গাফিলতি থাকে৷ আর সেই কারণেই ঘটে যায় বড়সড় দুর্ঘটনা৷ অনেকসময়ই বাঁধ প্রকল্পের কর্মীদের উপর নজর দেওয়া হয় না৷
বাঁধ সুরক্ষা বিল অনুসারে, প্রত্যেক রাজ্যেই বাঁধ সুরক্ষায় নির্দিষ্ট ফান্ড গঠন হবে৷ প্রয়োজন পড়লে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় বাঁধ সারাইয়ের কাজ হবে৷

বাঁধ সুরক্ষায় পদক্ষেপের অভাব আগেও লক্ষ্য করা গেছে৷ বিল পাশ হলে ঠেকানো যাবে এই গা ছাড়া মনোভাব বলে মনে করা হচ্ছে৷

----
--