১৩টি নতুন কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় খোলায় সায় দিল কেন্দ্র

নয়াদিল্লি: সাত রাজ্যে নতুন ১৩ টি কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় খোলার অনুমতি দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা। পাশাপাশি মধ্যপ্রদেশে দ্বিতীয় জহর নভদয় বিদ্যালয় খোলার অনুমোদনও মিলেছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই প্রস্তাবে সম্মতি দিয়েছেন।

এই নতুন ১৩টি কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় বান্দ্রা ( উত্তর প্রদেশ ), ওয়াসিম (মহারাষ্ট্র) , চাকপিকরাং ( মণিপুর ), প্রভানি ( মহারাষ্ট্র ) , নওদা ( বিহার ), মির্জাপুর ( উত্তর প্রদেশ ), ভাদহি ( উত্তর প্রদেশ ), পালামু ( ঝাড়খণ্ড ), সিদ্দিপেট ( তেলেঙ্গানা ) , কুদামালাকুন্তে ( কর্ণাটক) , সিআইএসএফ সুরজপুর ( উত্তর প্রদেশ ), দেবকুন্দ ( বিহার ), বাওলি ( উত্তর প্রদেশ) -এ গঠিত হবে।

কেন্দ্রের অর্থনীতি- বিষয়ক কমিটি মধ্যপ্রদেশের রাতলাম জেলায় দ্বিতীয় জহর নভদয় বিদ্যালয় খোলার অনুমতি দিয়েছে । এই জেলায় তপশীল জাতি ও উপজাতির সংখ্যা যথেষ্ট বেশি তাই এই জেলায় একটি নভদয় বিদ্যালয়ের দাবি বহুদিন থেকেই ছিল। সরকার তৎপরতার সঙ্গে বিষয়টি দেখে। উপযুক্ত জমির ব্যাবস্থা ও অন্যান্য বিষয়গুলি দেখে দ্রুত বিদ্যালয় চালু করার সিদ্ধান্ত নেয়।

- Advertisement -

এই মুহূর্তে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়গুলি ১২ লক্ষেরও বেশি ছাত্রছাত্রীকে গুণগত শিক্ষা ও জহর নভদয় বিদ্যালয় বিনামুল্যে আড়াই লক্ষ ছাত্রছাত্রীকে বিনামূল্যে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করছে । ১৩টি নতুন কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় তৈরি হলে বিভিন্ন ভাগের মোট ১৩ হাজার যোগ্য ছাত্রছাত্রী পড়াশুনোর সুযোগ পাবে। জহর নভদয় বিদ্যালয়ের সুবাদে আরও ৫৬০ জন ছাত্রছাত্রী বিনামুল্যে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনোর সুযোগ পাবে।

কেন্দ্রের অর্থনীতি- বিষয়ক কমিটি ২০১৭ সালের মার্চ মাসে এই বিষয়ে আলোচনায় বসে ও ৫০ টি কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় খোলার সিদ্ধান্ত হয়। ‘ চালেঞ্জড মেথডে ‘ এই শিক্ষা পদ্ধতি চালু করার আনুমানিক খরচ ১১৬০ কোটি।

এই বিদ্যালয়গুলি সেখানেই তৈরি হবে যেখানকার মানুষ সেখানে জমি দিতে রাজি থাকবেন। পাশাপাশি কেভিস-এর নিয়ম অনুযায়ী যারা প্রথমে আসবেন তারা আগে সুযোগ পাবেন। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ‘ চালেঞ্জড মেথডে ‘ -এর সম্পূর্ণ নিয়মাবলী প্রকাশ করা হয়। ‘চালেঞ্জড মেথডে ‘ এর অধীনে তেরোটি প্রস্তাবকে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হছে।

Advertisement ---
-----