নয়াদিল্লি: পিএনবি-কে নীরব মোদীর প্রতারণার জেরে এবার ঘুম ছুটতে চলেছে অডিটরদের৷ কারণ পেশাদার অডিটরদের নিয়ন্ত্রণ করতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা বৃহস্পতিবার অনুমোদন করল প্রস্তাবিত স্বাধীন সংস্থা ন্যাশনাল ফিনান্সিয়াল রিপোর্টিং অথোরিটি (এনএফআরএ)৷ পেশাগত দিক থেকে কোনও কিছু গলদ করার পর চাটার্ড অ্যাকাউন্টদের পলায়নের রন্ধ্রগুলি ভরাট করার উদ্দেশ্যেই এই পদক্ষেপ ৷

এনএফআরএ-কে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে সমস্ত নথিভুক্ত কোম্পানি এবং অনথিভুক্ত পাবলিক কোম্পানির চাটার্ড অ্যাকাউন্ট এবং তাদের ফার্মের বিষয়ে তদন্ত করার৷ যা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন৷ তাছাড়া কেন্দ্র যেসব বিষয়ে বলবে সেগুলির তদন্ত করবে এনএফআরএ৷ মন্ত্রিসভা অনুমোদন করেছে এনএফআরএ-তে একজন চেয়ারম্যান এবং ১৫জন সদস্যকে রাখার৷ যারমধ্যে তিনজন সদস্য পূর্ণ সময়ের এবং একজন সচিবকে অনুমোদন করা হয়েছে৷

২০১৩ সালে কোম্পানি আইনে সংস্কারের সময় অন্যতম পরিবর্তন এনে এই এনএফআরএ গঠন করা হয় কিন্তু তারপরে গত পাঁচ বছরে এর জন্য নিয়ম বিধি বিজ্ঞাপিত হয়নি৷ তবে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের আর্থিক কেলেঙ্কারির জেরে এবার সরকার নড়ে চড়ে বসল চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের কার্যকলাপের উপর নজরদারি চালাতে৷ কারণ অলংকার ব্যাবসায়ী নীরবমোদী ও তার মামা মেহুল চোক্সির জালিয়াতির জেরে ১২,৬৩৬ কোটি টাকার আর্থিক কেলেঙ্কারি হয়েছে এই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের৷

তবে সরকারের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে , ইনস্টিটিউট অফ চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস ইন্ডিয়া (আইসিএআই)-এর যে জন্মগত নিয়ন্ত্রকের ভূমিকা ছিল সেটা থাকবে – সাধারণ ভাবে কোন সদস্যের উপর এবং বিশেষত প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি অডিট সংক্রান্ত বিষয়ে এবং পাবলিক অনথিভুক্ত কোম্পানির ক্ষেত্রে নিয়মবিধি অনুসারে তার সীমার ক্ষেত্রে ৷ তাছাড়া অ্যাকাউন্টিং এবং অডিটিং স্ট্যান্ডার্ড ও নীতির সাপেক্ষে এনএফআরএ-কে সুপারিশ করে আইসিএআই পরামর্শদাতা ভূমিকাটাও পালন করতে পারবে৷ জেটলি জানিয়েছেন , তারা এই ইনস্টিটিউটের পেশাদার স্বাধীনস্বত্তায় কোনও রকম হস্তক্ষেপ করতে চান না৷ সাধারণ রুটিন বিষয়গুলি ইনস্টিটিউট-এর হাতেই থাকছে৷

এই এনএফআরএ গঠনের প্রয়োজন হল অ্যাকাউন্টিং কেলেঙ্কারি উঠে আসায় এবং সেক্ষেত্রে অডিটরদের কাজ নিয়ে প্রশ্ন উঠল বলেই৷ নীবর মোদী নিয়ে যখন কেন্দ্রীয় সরকারের দিকে অভিযোগের আঙুল উঠতে থাকে তখন কিছুটা আত্মপক্ষ সমর্থনে অডিটরদের ভূমিকার নিয়ে প্রশ্ন তোলেন জেটলি৷ গত সপ্তাহেই তিনি প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছিলেন, এতদিন ধরে অডিটররা কি করছিল ? কেননা ২০১১ সাল থেকেই তো কেলেঙ্কারি শুরু হয়েছে- এটা তো অডিটরদের ব্যর্থতা বলে অভিমত প্রকাশ করেছিলেন জেটলি৷

এনএফআরএ ক্ষমতা থাকছে শুধুমাত্র কোম্পানির অডিট করা চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের নয় পাশাপাশি তাদের ফার্মগুলিরও তদন্ত করা৷ তাছাড়া কোনও অসদাচরণ করলে ফি হিসেবে যা পেয়েছেন কোনও বক্তির ক্ষেত্রে তার পাঁচগুণ জরিমানা হবে এবং ফার্মের ক্ষেত্রে তার দশগুণ জরিমানা হবে৷

----
--