মুজফফরপুর হোম কাণ্ডে জড়িয়ে গেল রাজ্যের মন্ত্রীর নাম

পাটনা: মুজফফরপুর হোম কাণ্ডে এবার নাম জড়াল রাজ্যেরই মন্ত্রীর৷ বিহারের মন্ত্রী মঞ্জু বর্মার স্বামীর সঙ্গে ওই হোমের মালিকের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল বলে জানতে পেরেছে পুলিশ৷

মন্ত্রী মঞ্জু বর্মার স্বামী চন্দেশ্বর বর্মার ওপর এখন নজর রাখছে তদন্তকারী আধিকারিকরা৷ এই চন্দেশ্বরের নামে প্রথম অভিযোগ করে ধৃত এক শিশু সুরক্ষা আধিকারিকের স্ত্রী৷ তিনি বলেন এই গোটা ঘটনার সঙ্গে চন্দেশ্বরের গোপন যোগাযোগ রয়েছে৷ তারপরেই গোপনে তার ওপর নজরদারি চালাতে শুরু করেন তদন্তকারী আধিকারিকরা৷

শুধু মালিকের সঙ্গে যোগাযোগই নয়, ওই হোমে বেশ কয়েকবার নাকি গিয়েছেন চন্দেশ্বর৷ তবে কেন তিনি হোমে গিয়েছিলেন, তা এখনও স্পষ্ট হয়নি৷ মুজফফরপুরের শিশু সুরক্ষা আধিকারিক রবি রোশনের স্ত্রী শিবা কুমারি চন্দেশ্বরের বিরুদ্ধে সরাসরি অভিযোগের আঙুল তোলেন৷ তবে সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্যে চন্দশ্বরের নাম ছড়িয়ে দেওয়ায় শিবা কুমারিকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷

- Advertisement -

মুজফফরপুর হোম কাণ্ডের মূল অভিযুক্ত ব্রজেশ ঠাকুরের ফোনের কললিস্ট খতিয়ে দেখেন তদন্তকারী আধিকারিকরা৷ তখনই চন্দেশ্বরের সঙ্গে তার যোগাযোগের প্রমাণ মেলে৷ তবে ফোন নম্বর পাওয়া গেলেও, চন্দেশ্বরের সঙ্গে ব্রজেশের কখনও কথা হয়েছে কীনা, তা খতিয়ে দেখবে পুলিশ৷

সোমবারই সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী মঞ্জু বর্মার পদত্যাগ পত্র বাতিল করে দেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার৷ সঙ্গে ছিলেন বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদীও৷

কেন পদত্যাগপত্র গ্রহণ করা হল না? সে সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে নীতীশ কুমার বলেন, মঞ্জু বর্মার সঙগে সরাসরি কোনও ঘটনার যোগ মেলেনি৷ তাই তাঁর পদত্যাগের অর্থ তিনি নিজে কোনও ভুল কাজ করেছেন৷

Advertisement ---
-----