স্টাফ রিপোর্টার, ক্যানিং: চিকিৎসার গাফিলতিতে রোগী মৃত্যুর ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং-য়ে৷ অভিযোগের তির ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালের বিরুদ্ধে। মৃতের নাম বাপন সর্দার (২৫)৷ ক্যানিং জীবনতলা থানা এলাকার গৌড়দহ শ্রীকৃষ্ণপুরের বাসিন্দা সে৷ রোগী মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে হাসপাতাল চত্বরে বিক্ষোভ দেখায় মৃতের পরিবার-পরিজনেরা৷

মঙ্গলবার রাতে ক্যানিং-বারুইপুর রোডে বাইক দুর্ঘটনায় গুরুতর ভাবে জখম হয় বছর পঁচিশের বাপন সর্দার। দুর্ঘটনার পর আহত বাপনকে স্থানীয় ঘুটিয়ারি শরীফ ব্লক প্রাথমিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সেখানেই তাঁর প্রাথমিক চিকিৎসা করেন এক চিকিৎসক৷ পরে বাপনকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করে দেওয়া হয়।

Advertisement

মৃতের পরিবারের দাবি, দুর্ঘটনার পর মোটামুটি সুস্থই ছিল বাপন। নিজের পায়ে হেঁটেই হাসপাতালে যায় সে। কিন্তু ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে এলে পেটে অসহ্য যন্ত্রণা শুরু হয় তাঁর। অভিযোগ, সেই কথা বারবার ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসককে জানানো হলেও তিনি গুরুত্ব দেন না। ধীরে ধীরে বাপনের অবস্থা জটিল হতে শুরু করে৷ সেই সময় ওই চিকিৎসকের নির্দেশে তাঁকে দু’টি ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়। অভিযোগ, এই ইঞ্জেকশন দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই মৃত্যু হয় ওই যুবকের।

ঘটনার পর চিকিৎসার গাফিলতির অভিযোগ তুলে হাসপাতাল চত্বরে বিক্ষোভ দেখায় রোগীর পরিবার। পরে ক্যানিং থানার পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে৷ তবে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার রাতে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে সাময়িক ভাবে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়৷

----
--