কলকাতা: পচা মাংস বা ভাগাড়ের মাংসের আতঙ্কে এখন ভুগছে কলকাতাবাসী। রেস্তোরাঁর খাবারে রীতিমত ভয় ধরেছে। চিকেন ফ্রাই, চিকেন উইংস এখন দুঃস্বপ্ন। এতদিন ধরে কি এসব লোভনীয় খাবারের প্রত্যেকটা কামড়ে মিশেছিল জীবাণু? এই প্রশ্ন এখন কুরে কুরে খাচ্ছে মুরগী-প্রিয় বাঙালিকে। রসিয়ে হাড় চিবনো তো দূরের কথা, মাংস দেখলই কেমন যে সন্দেহ হচ্ছে।

এসবের মাঝেই ‘মিও আমোরে’ নিয়ে বাজ পড়ল শহরবাসীর মাথায়। চিকেন ক্রসউইন্ডস বা স্মোকি চিকেনের মধ্যেও নাকি ছিল ভাগাড়ের মাংস। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনই খবর ছড়িয়ে পড়েছে। হোয়াটসঅ্যাপে ঘুরছে সেই সতর্কবার্তা। সেখানে লেখা আছে, ‘ভাগাড়ে কাণ্ডে নাম জড়াল জনপ্রিয় বিপণীর। অসাধু চক্রের বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি। সমস্ত আমিষ পদে ব্যবহার হত মৃত পশুর কুঁচো মাংস।’

Advertisement

স্বাভাবিকভাবেই এই বার্তায় আঁতকে উঠছেন কলকাতাবাসী। এত লোভনীয় মাংসের প্রিপারেশন গুলোয় ভাগাড়ের মাংস ছিল, ভাবেই গা গুলিয়ে উঠছে।

তবে, এই ঘটনাকে নিছকই গুজব বলছে মিও আমোরে কর্তৃপক্ষ। ফেসবুকে একি পোস্ট করে সেকথা জানাল তারা। একটি পোস্ট করে তারা জানিয়েছে যে, বিষয়টা তাদের কানে এসেছে। কেউ বা কারা এই ধরনের গুজব ছড়াচ্ছে বলে অভিযোগ সংস্থার। কোথা থেকে এই গুজবের উৎসব, সেটা অনুসন্ধান করতে কলকাতা পুলিশের সাইবার সেলের সাহায্যও নিচ্ছে তারা। আইনের সাহায্য নিয়ে এই ধরনের গুজবের বিরুদ্ধে সব ব্যবস্থা নিতে চায় সংস্থা। তাদের দাবি, এই গুজব সম্পূর্ণ মিথ্যা।

----
--