‘কলকাতা হাইকোর্টের অর্ডারের অবমাননা করেছে সিবিআই’

সৌমেন শীল, নয়াদিল্লি: সারদাকাণ্ডে কলকাতা পুলিশ কমিশনারকে সিবিআইয়ের মুখোমুখি হতেই হবে, তবে কলকাতা নয়, নিরপেক্ষ স্থান হিসেবে শিলংয়ে চলবে এই তদন্তের কাজ, রায় সুপ্রিম কোর্টের৷ রবিবার সন্ধ্যায় তদন্তের কাজে রাজীব কুমারের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে বাধার সম্মুখীন হতে হয় বলে সিবিআই আধিকারিকদের অভিযোগ৷ বিষয়টি গড়ায় সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত৷ বুধবার সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয়, চলতি মাসের ২০ তারিখের মধ্যে শিলংয়ে সিবিআই দফতরে হাজির হতে হবে রাজীব কুমারকে৷

কলকাতা ২৪x৭-এর মুখোমুখি কলকাতা পুলিশের সিনিয়র আইনজীবী বিশ্বজিত দেব প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে জানান, ‘সিবিআইয়ের তরফ থেকে বহু অভিযোগ করা হয়েছে’৷ অ্যাটর্নি জেনারেল জানিয়েছেন, ‘সিবিআই আধিকারিকদের নাকি বন্দি করে রাখা হয়েছিল রাজ্য সরকারের তরফ থেকে৷ … অ্যাটর্নি জেনারেলের জানা উচিত তিনি তথ্য প্রমাণ ছাড়া এই অভিযোগ করছেন৷ সিবিআই যদি মনে করে কোনও তথ্য প্রমাণ দরকার, যে সময় সিট গঠিত হয়েছিল, তাহলে নিশ্চয় সহযোগিতা করবে৷ আগেও তারা সহযোগিতা করবেন বলে জানিয়েছিলেন৷ কোর্টের নির্দেশের পর নিশ্চয় তারা সহযোগিতা করবেন৷ ‘

ফাইল ছবি

বাংলা এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর মোতাবেক সিবিআইয়ের এক শীর্ষকর্তার বক্তব্য, এই প্রসঙ্গ জানতেই কলকাতার পুলিস কমিশনারকে বারংবার ডাকা হয়েছে। কিন্তু তিনি না আসায় তাঁর বাড়িতে গিয়েই এনিয়ে কথা বলার পরিকল্পনা করা হয়। সেই কারণেই আধিকারিকরা সেখানে গিয়েছিলেন। সেখানে তাঁদের ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। এরপর রীতিমতো চ্যাংদোলা করে অফিসারদের গাড়িতে তোলেন কলকাতা পুলিশের অফিসাররা। পরিচয়পত্র ও কাগজপত্র দেখানোর পরও তাঁদের দীর্ঘক্ষণ আটকে রাখা হয় থানায়। এমনকী উর্দিধারীরা গোটা নিজাম প্যালেসের দখল নিয়ে নেন। কেন্দ্রীয় বাহিনী আসার খবর পেয়েই অবশ্য দ্রুত রাজ্য পুলিশ সেখান থেকে সরে যায়। যদিও মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই নাকি পুলিশ সেখান থেকে সরে যায় বলে খবর।

- Advertisement -

আইনজীবী বিশ্বজিত দেব জানান, ‘কলকাতা পুলিশ কমিশনার যে কোনও মামলায় জড়িত তা কিন্তু কেউ একবারও বলছেন না৷ প্রথমদিকে যা করা হয়েছিল- ১৬০সিআরপিসি-তে ওনাকে সাক্ষী হিসাবে নোটিশ করা হয়েছিল৷ সেই নোটিশের ব্যাপারেও কলকাতা হাইকোর্টের একটা অর্ডার আছে যে ১৩ তারিখ পর্যন্ত কোনও নোটিশ কার্যকর করা যাবে না৷ সিবিআই কিন্তু কলকাতা হাইকোর্টের অর্ডারের অবমাননা করেছে৷’

প্রসঙ্গত, চিটফান্ড কাণ্ডে পুলিশ কমিশনার সহ চার আধিকারিককে জিজ্ঞাসাবাদের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট৷ আদালত রায় দেয়, পুলিশকর্তাদের জেরা নয়, প্রয়োজনে তাঁদের সঙ্গে আলোচনা করা যেতে পারে৷ কিন্তু সিবিআই সেই রায়ের অবমাননা করেছে বলে অভিযোগ রাজ্যের৷