চন্দ্রবাবুর অনশন মঞ্চেও উঠে এল বিরোধী ঐক্যের ছবি

নয়াদিল্লি: বারো ঘণ্টা পর অনশন ভাঙলেন অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু৷ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচডি দেবগৌড়ার হাত থেকে ফলের রস খেয়ে অনশন ভাঙেন তিনি৷

সোমবার সকাল সাড়ে আটটায় রাজধানী দিল্লির অন্ধ্রপ্রদেশ ভবনে রাজ্যের জন্য বিশেষ মর্যাদার দাবিতে অনশনে বসেন চন্দ্রবাবু৷ তাঁর অনশনকে সমর্থন জানায় অবিজেপি প্রায় সব দলই৷ সকাল থেকেই ধর্না মঞ্চে লেগে ছিল বিরোধী নেতাদের ভিড়৷ লোকসভা ভোটের মুখে এই অনশন মঞ্চ থেকে বিরোধী ঐক্যের ছবি আর একবার প্রকট হল৷

- Advertisement -

এদিন সকালে চন্দ্রবাবুর ধর্না মঞ্চে যান কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী৷ সঙ্গে ছিলেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা৷ চন্দ্রবাবুর সামনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে মিথ্যাবাদী বলে তোপ দাগেন রাহুল৷ তাঁর অভিযোগ, মোদী যেখানে যান মিথ্যা কথাই বলেন৷ উত্তর পূর্বে গিয়ে বলেছেন৷ অন্ধ্রপ্রদেশ এসে বলেছেন৷ তিনি মানুষের আস্থা ও বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছেন৷

এরপর বেলা যত গড়াতে থাকে ততই বিরোধী নেতাদের সমাগম বাড়তে থাকে ধর্না মঞ্চে৷ আসেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, সমাজবাদী পার্টি সুপ্রিমো মুলায়ম সিং যাদব, এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার,তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন, আপ নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী মোদীর বিরোধিতায় একধাপ এগিয়ে তাঁকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তুলনা করেন৷ এই ধর্না মঞ্চে উপস্থিত হয়ে সবাইকে চমকে দেয় বিজেপির জোট শরিক শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত৷

একমাসের ব্যবধানে এই নিয়ে তিনবার বিরোধী ঐক্যের ছবি সামনে এল৷ প্রথম এই ছবি ধরা পড়েছিল কলকাতার ব্রিগেডে৷ যেখানে মতাদর্শগত বিরোধ ভুলে ২৩টি বিরোধী দলের নেতারা একই মঞ্চে সামিল হয়৷ কিছুদিন আগে কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানাকে কেন্দ্র করে রাজ্যের সঙ্গে কেন্দ্রের সংঘাত বাধে৷ সেই বারও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে থাকার বার্তা নিয়ে ছুটে আসেন তেজস্বী যাদব ও কানিমোঝির মতো নেতা নেত্রীরা৷ ফোন করে অন্যান্য নেতারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমর্থন জানান৷