বন্যাদুর্গতদের জন্য চাপাটি তৈরি করছে জেলের কয়েদিরা

তিরুবনন্তপুরম: জলে ভেসে গিয়েছে সর্বস্ব৷ সর্বস্বান্ত হয়েছেন বহু মানুষ৷ স্বজন হারানোর যন্ত্রণা বুকে নিয়ে হাহাকার করে ফিরছেন জলমগ্ন কেরলের বুকে৷ বৃষ্টি থামলেও চিন্তার মেঘ কিন্তু কাটছে না কেরলবাসীর৷ সবকিছু সামলে কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে এখন সেটাও তো বড় চ্যালেঞ্জ৷

বন্যাবিধ্বস্ত কেরলের পাশে যে যেমনভাবে পারছে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে৷ যেমন এগিয়ে এসেছেন পুজাপ্পুরার সেন্ট্রাল জেলের কয়েদিরা৷ সে রাজ্যে এখন এমন অবস্থা রোজকার খাবার, জলটুকুও মিলছে না সহজে৷ তাই সেন্ট্রাল জেলের কয়েদিরা চাপাটি তৈরি করে পাঠাচ্ছে দুর্গতদের জন্য৷ বিভিন্ন ত্রাণ শিবিরে পৌঁছে যাচ্ছে হাতে গড়া রুটি৷

আরও পড়ুন: এনআরসির প্রতিবাদে তুলি হাতে পথে নামলেন শিল্পীরা

- Advertisement -

বহুদিন ধরেই এই সেন্ট্রাল জেলে বিভিন্ন রকম খাবার তৈরি করে তা বিক্রি করে বন্দিরা৷ তাদের একটি ব্র্যান্ডও আছে, নাম ‘ফ্রিডম’৷ এই ব্র্যান্ড নেম ব্যবহার করেই চাপাটি, সবজি, চিকেনকারীর মতো সুস্বাদু খাবার তৈরি করে তা বিক্রি করে তারা৷ কম দামে শহরের বহু কাউন্টারে তা বিক্রিও হয়৷

জেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গত সপ্তাহ থেকে দুর্গতদের জন্য প্রায় ৪০ থেকে ৫০ হাজার চাপাটি বানানো হয়েছে৷ কাজের চাপ যেহেতু এখন অনেক বেশি ৫০জন বন্দি একসঙ্গে হাত লাগিয়ে চাপাটি তৈরি করছে৷ নিজেদের সুবিধামতো তারা সময় ভাগ করে নিয়েছে৷

আরও পড়ুন: কেরলে আটকে পড়া শ্রমিকদের জন্য মুর্শিদাবাদে কন্ট্রোল রুম

সেন্ট্রাল জেল থেকে চাপাটি আর সবজি ভর্তি প্যাকেট তুলে দেওয়া হচ্ছে জেলের আধিকারিকদের হাতে৷ তাঁরাই তা পৌঁছনোর ব্যবস্থা করছেন বিভিন্ন ত্রাণ শিবিরে৷ একজন সিনিয়র আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘‘আমরা চেষ্টা করেছি খাবারের প্যাকেটগুলি যাতে উপর থেকে ফেলা যায় সেভাবে তৈরি করতে৷ হেলিকপ্টার থেকে বিভিন্ন বাড়ি বা আবাসনে আটকে থাকা মানুষগুলোকে যাতে সেই খাবার দিয়ে সাহায্য করা যায়৷’’

শুধু চাপাটি আর সবজি নয়, জ্যাম এবং প্যাকেজ করা জলও পাঠানো হচ্ছে এই জেল থেকে৷ এর আগে ২০১৫ সালে এরকমই এক দৃষ্টান্ত তৈরি করেছিল তিরুবনন্তপুরম সেন্ট্রাল জেলের কয়েদিরা৷ প্রায় ৫০হাজার চাপাটি তৈরি করেছিল তারা৷ যা চেন্নাইয়ে বন্যার সময় তামিলনাড়ুতে পাঠানো হয়েছিল৷

Advertisement ---
---
-----