‘ডু অর ডাই’ ম্যাচে চেন্নাইকে ১৫৪ রানের টার্গেট পঞ্জাবের

পুণে: ডু অর ডাই’ ম্যাচে চেন্নাইয়ের সামনে জয়ের জন্য ১৫৪ রানের লক্ষ্যমাত্রা রাখল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব৷ টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে পঞ্জাব ১৯.৪ ওভারে ১৫৩ রানে অলআউট হয়ে যায়৷

হায়দরাবাদ ও চেন্নাই আগেই প্লে-অফের টিকিট নিশ্চিত করে ফেলায় লিগের শেষ ম্যাচটা ছিল সিএসকে’র কাছে নিছক নিয়ম রক্ষার৷ তবে পঞ্জাবের কাছে এটা মরণ-বাঁচন ম্যাচ৷ শুধু জিতলেই হবে না, মাথায় রাখতে হবে নেট-রানরেটের বিষয়টাও৷ এই অবস্থায় দিনের প্রথম ম্যাচে দিল্লির কাছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স হেরে প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে যাওয়ায় পঞ্জাবের পথ তুলনায় কাঁটামুক্ত হয়৷

এক্ষেত্রে চতুর্থ দল হিসাবে প্লে-অফে জায়গা করে নেওয়ার লড়াইে রাজস্থানকে টেক্কা দেওয়ার লক্ষ্যেই চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে মাঠে নামে প্রীতি জিন্টার দল৷ যদিও ধোনিদের বিরুদ্ধে ইনিংসের শুরুটা মোটেও মনে রাখার মতো হয়নি অশ্বিনদের৷ মাত্র ১৬ রানের মধ্যে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন গেইল (০), ফিঞ্চ (৪) ও লোকেশ রাহুল (৭)৷

- Advertisement -

গেইল ও রাহুলকে আউট করেন লুঙ্গি এনগিদি৷ ফিঞ্চকে ফেরান চাহার৷ ডেভিড মিলারকে সঙ্গে নিয়ে মনোজ তিওয়ারি প্রাথমিক বিপর্যয় রোধ করেন৷ চতুর্থ উইকেটের জুটিতে দু’জনে যোগ করেন ৬০ রান৷ শেষে ৩০ বলে ৩৫ রান করে বাংলা অধিনায়ক জাদেজার বলে ধোনির হাতে ধরা পড়ে যান৷ তিনি তিনটি চার ও একটি ছক্কা মারেন৷

ডেভিড মিলার একটি চার ও একটি ছক্কার সাহায্যে ২২ বলে ২৪ রান করে করে ব্রাভোর বলে বোল্ড হন৷ করুণ নায়ার ২৬ বলে ৫৪ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলে পঞ্জাবকে দেড়শো রানের গণ্ডি পার করান৷ ব্রাভোর বলে আউট হওয়ার আগে নায়ার ৩টি চার ও ৫টি ছক্কা মারেন৷

টেলএন্ডাররা বিশেষ অবদান রাখতে পারেননি৷ অক্ষর প্যাটেল ১২ বলে ১৪ রান করে শার্দুল ঠাকুরের বলে আউট হন৷ খাতা খোলার আগেই অশ্বিন ও তাইকে ফিরিয়ে দেন এনগিদি৷ রাজপুত ২ রান করে শার্দুলের শিকার হন৷ ব্যক্তিগত ২ রানে অপরাজিত থাকেন মোহিত শর্মা৷

চেন্নাইয়ের হয়ে ১০ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট নেন লুঙ্গি এনগিদি৷ এছাড়া দু’টি করে উইকেট পেয়েছেন শার্দুল ও ব্রাভো৷ একটি করে উইকেট চাহার ও জাদেজার৷

Advertisement ---
-----