মাথার দাম ৪৭ লক্ষ টাকা! আত্মসমর্পণ মাওবাদী নেতার

রায়পুর: আত্মসমর্পণ করল মাওবাদী নেতা৷ দীর্ঘদিন ধরেই পুলিশের খাতায় ফেরার ছিল সে৷ পুলিশ সূত্রে খবর পাহাড় সিং ওরফে কুমারসায় ওরফে রামমহম্মদ সিং টোপ্পো নিজে থেকে পুলিশের কাছে ধরা দেন বৃহস্পতিবার৷ ছত্তিশগড় পুলিশ জানিয়েছে এই পাহাড় সিংয়ের মাথার দাম ৪৭ লক্ষ টাকা ধার্য করা হয়েছিল৷

এই পাহাড় সিং রাজনন্দগাঁও এলাকার বাসিন্দা৷ দুর্গ জেলার পুলিশের আইজি জি পি সিং-এর কাছে এসে আত্মসমর্পণ করে সে৷ ১৯৯৯ সাল থেকে সক্রিয় মাওবাদী হিসেবে পুলিশের কাছে চিহ্নিত ছিল এই পাহাড় সিং৷ ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্র পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে এই পাহাড় সিংয়ের উদ্দেশ্যে তল্লাশি জারি রাখে৷

মাও অধ্যুষিত রাজনন্দগাঁও এলাকার এই মাও নেতা মধ্যপ্রদেশ-ছত্তিশগড় স্পেশাল জোনের বড় মাথা ছিল৷ এছাড়াও গোন্ডিয়া ডিভিশনের সেক্রেটারি ছিল পাহাড় সিং৷ গত দুদশক ধরে মাওবাদী আন্দোলনের অন্যতম নেতা এই পাহাড় সিং৷

- Advertisement -

এরআগে, ছত্তিশগড়ের জঙ্গল এলাকা কাঁপিয়ে বেড়ানো মাওবাদি নেতা রবি, তার স্ত্রী বুধরি ও দুই সন্তান নিয়ে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে৷ প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার মাথার দাম ধরা হয়েছিল ৫ লক্ষ টাকা৷ বহুদিন ধরেই মাওবাদী নেতা রবিকে খুঁজছিল পুলিশ৷ ছত্তিশগড় পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে সে ও তার পরিবার৷ সংবাদ সংস্থা এএনআই জানায় শুধু রবি নয়, তার স্ত্রী বুধারির মাথার দামও ৫ লক্ষ টাকা ঘোষণা করেছিল পুলিশ৷ এরা দুজনেই একাধিক নাশকতা মূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিল৷ ছত্তিশগড়ের সুকমার কেরলাপাল থেকে ২০১২ সালে সুকমার কালেক্টর অ্যালেক্স পল মেননের অপহরণের পিছনে এই মাওবাদী দম্পতির হাত ছিল বলে মনে করা হয়৷ এছাড়াও একাধিক লুঠ ও বোমা বিস্ফোরণের সঙ্গে যুক্ত এই দম্পতি৷

আত্মসমর্পণের সময় রবি ও বুধরি পুলিশকে জানায়, সাধারণ গরিব মানুষদের সেবা করতেই তারা মাওবাদী দলে নাম লিখিয়েছিল৷ কিন্তু ধীরে ধীরে সেই উদ্দ্যেশ্য থেকে সরে আসে তারা৷ পাশাপাশি, সরকারের প্রতি ঘৃণা থেকেও এই মাওবাদী হওয়ার কথা ভেবে ছিল তারা৷

এপ্রিল মাসে ছত্তিশগড়ে নারায়ণপুরে আত্মসমর্পণ করে অন্তত ৬০ মাওবাদী৷ বস্তার ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজি) বিবেকানন্দ সিনহার কাছে এসে আত্মসমর্পণ করে এরা৷ এই ৬০ জন মাওবাদীর মধ্যে ৪০ জন পুরুষ এবং ২০ জন মহিলা ছিল৷ পাশাপাশি সাতটি রাইফেল ফিরিয়ে দেয় মাওবাদীরা৷

Advertisement ---
---
-----