শ্যুটিং বন্ধ, মন ভালো নেই টিনটিনের

সুভাষ বৈদ,কলকাতা: পাঁচ দিন ধরে বন্ধ ধারাবহিকের শ্যুটিং৷ তার প্রভাব পড়ছে শিশু মনে৷ ‘ভানুমতীর খেল’-ধারাবাহিকের শিশু চরিত্র টিনটিন তাই মনমরা৷ একমাত্র শ্যুটিং চললেই দেখা হয় বন্ধুদের সঙ্গে, কত মজা, আড্ডায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাজ, তাও ক্লান্তি থাকেনা টিনটিন চরিত্রের শিশু শিল্পী সামন্তক দ্যুতি মৈত্রের৷ তবে গত কয়েকদিনের চিত্রটা যে বড্ড মনখারাপের৷

শুনশান টলির পাড়ায়, নেই সিরিয়ালের শ্যুটিং৷ কলা-কুশলীদের আপাতত কর্মবিরতির জেরে টলি পাড়ার সার্বিক চিত্রটা ঠিক এরকমই৷ যার বেশিরভাগটাই মাথায় ঢুকছে না সামন্তকের মত খুদে শিল্পীদের৷ আর তাই শ্যুটিংয়ে না যেতে পাড়ার কষ্টটা সামন্তকের চোখে মুখে স্পষ্ট৷
কেন মন খারাপ? উত্তরে সামন্তক জানায়, টিভিতে পুরানো এপিসোড দেখতে তার আর ভালো লাগছে না৷ শ্যুটিং না করলে নতুন এপিসোডও তৈরি হবে না৷ সেই কারণেই একদমই মন ভালো নেই তার৷ সামন্তক আদৌ কি জানে, কেন শ্যুটিং বন্ধ? উত্তর এল, ‘বড়দের কিছু সমস্যা হচ্ছে বলে তাঁরা শ্যুটিং করবে না বলেছে, এর বেশি কিছু জানি না৷’ শিশু শিল্পীরা সত্যিই জানে না কেন টলি পাড়ার শ্যুটিং বন্ধ৷ জানে না বলেই শিশু মনের দাবি, শ্যুটিং টা অন্তত হোক৷ তা না হলে বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হওয়ার সুযোগটাও যে পাওয়া যাবে না৷

পড়ুন:ধারাবাহিকের ‘জট’ খুলতে মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ, বৈঠক নবান্নে

- Advertisement -

দিনের পর দিন ওভারটাইম করে প্রাপ্য টাকা না পাওয়া! ঘন্টার পর ঘন্টা কাজের পরও বেতন নিয়ে জটিলতা৷ এই ধরণের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে প্রযোজকদের সঙ্গে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের বিবাদ বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে। তবে গত ৭ জুলাই প্রযোজক সংগঠন WATP ও কলাকুশলী সংগঠন FCTWEI-এর একটি মিলিত বৈঠক হয় এবং মৌ স্বাক্ষরিত হয়। তারপর ১৮ অগস্ট বন্ধ হয়ে যায় বহু সিরিয়ালের শ্যুটিং।

শ্যুটিং নেই, অগত্যা পড়াশোনাতেই বেশি করে সময় দিচ্ছে সামন্তক৷ পাশাপাশি চলছে খেলাধুলো৷ বাড়ির বাইরে বা ভিতের পড়াশুনা সেরেই খেলায় মন দিচ্ছে‘ভানুমতী খেল’-এর টিনিটিন৷ মনমরা খুদে শ্যুটিং বন্ধের দুঃখটা খেলতে খেলতেই মেনে নিচ্ছে৷ যদিও মনটা পড়ে আছে টলি পাড়ার ব্যস্ত স্যুটিং স্পটে৷

Advertisement ---
-----