বন্যা কবলিতদের সাহায্যের হাত বাড়াল খুদে পড়ুয়ারা

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: শতাব্দীর সব থেকে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে কেরল। এই বন্যায় মৃত্যু হয়েছে অনেকের৷ গৃহহীন হয়েছেন বহু মানুষ। দু’বেলা দু’মুঠো খাবারও পাচ্ছেন না বন্যা কবলিত মানুষরা৷ বাদ যাচ্ছে না শিশুরাও। এবার এই বন্যা কবলিত মানুষ ও শিশুদের মুখে সামান্য খাবার পৌঁছে দিতে নিজেদের টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে তুলে দিল খুদে পড়ুয়ারা৷

প্রকৃতির আগ্রাসনে শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যায় এখন হাহাকার দেখা দিয়েছে কেরলে। ঘরবাড়ি হারিয়ে বহু মানুষ আশ্রয় নিয়েছে ত্রাণ শিবিরগুলিতে। সেই ত্রাণ শিবিরে দু’বেলা দু’মুঠো খাবারের আশায় হাপিত্যেশ করে বসে রয়েছে বৃদ্ধ থেকে শিশুরা। কেরলের বন্যা কবলিত মানুষদের ফের ঘুরে দাঁড়াতে ইতিমধ্যেই দেশ বিদেশ থেকে আসতে শুরু করেছে সাহায্য। এই রাজ্যের আটকে পড়া শ্রমিকরাও ফিরতে শুরু করেছে ঘরে। এবার এই বন্যা কবলিত মানুষ, বৃদ্ধ ও শিশুদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এল মুর্শিদাবাদ জেলা৷ জেলার প্রত্যন্ত এক গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খুদে পড়ুয়ারা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল কেরলের দিকে।

মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া থানার রুকুনপুর বিদ্যাসাগর শিশু নিকেতনের ছাত্র ছাত্রীরা তাদের টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে তা তুলে দিল বিদ্যালয়ের হাতে। এই টাকা তুলে দেওয়া হবে মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে। এই খুদে পড়ুয়াদের হয়তো সকলের জানা নেই কি এই বন্যা৷ কোথায় কেরল রাজ্য৷ কিন্তু সেখানকার হাহাকারের কথা এবং শিশুদের কথা তারা শুনেছে৷ স্কুল শিক্ষক বা পরিবারের সদস্যদের কাছে শুনেই তারা এই সিদ্ধান্ত নেয়। এই ঘটনা তাদের শিশু মনকেও নাড়িয়ে দিয়েছে। তাই তারা নিজেদের টিফিনের সামান্য পয়সাটুকুও তুলে দিল মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে। খুদে পড়ুয়াদের পাশাপাশি এই মহৎ উদ্যোগে সামিল হয়েছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা সহ অভিভাবকেরাও।

----
-----