ঝুঁকির পারাপার, স্কুলে যেতে অস্থায়ী রোপওয়ে ভরসা পড়ুয়াদের

সৌজন্যে এএনআই

নৈনিতাল: স্কুল আছে৷ সেই স্কুলে যেতে গৌলা নদী পেরতে হয় পড়ুয়াদের৷ আগে ওই নদীর উপর ছিল একটি ব্রিজ৷ এখন আর নেই৷ তাই জীবন বাজি রেখে বাধ্য হয়ে স্কুলে যেতে হচ্ছে পড়ুয়াদের৷

নৈনিতালের কাঠগোদাম শহরের ঘটনা৷ চার মাস আগে প্রবল বৃষ্টিতে ব্রিজটি ভেঙে চুরে সাফ হয়ে যায়৷ কিন্তু গৌলা নদী পেরনোর ওই ব্রিজই ছিল সহজতম পথ৷ এখন ব্রিজ না থাকায় অস্থায়ী ভাবে রোপওয়ে বানিয়ে নদী পারাপার করছে পড়ুয়া থেকে নিত্যযাত্রীরা৷ যাদের সাহসে কুলোচ্ছে না তারা নদীর পার ধরে হেঁটে ওপারে যাচ্ছে৷ তাতে সময় লাগছে অনেক৷

পড়ুয়া থেকে শুরু করে যাত্রীরা সকলে জানে বিপজ্জনকভাবে নদী পথ পেরোচ্ছেন তারা৷ কিন্তু উপায় নেই৷ দুর্দশার কথা নিজেদের মুখে জানালেন পড়ুয়ারা৷ এক পড়ুয়ারা জানিয়েছে, এটাই তাদের রোজনামচা৷ এই ভাবেই রোজ নদী পথ পেরোতে হয় তাদের৷ অনেকে আছে যারা নদীর পার ধরে হেঁটে ওপারে যায়৷ কিন্তু তাতে সময় লাগে অনেক৷ কম সময়ে ওপারে যাওয়ার এটাই সহজ পথ৷ কিন্তু এই পথে ঝুঁকি বড্ড৷ রোপওয়ে ছিঁড়ে যাওয়ার ভয় তো আছে৷ এই অস্থায়ী রোপওয়ে একসাথে অনেক পড়ুয়ার ওজন নিতে পারে না৷

ফাইল ছবি
- Advertisement -

আরও এক পড়ুয়া জানিয়েছে, সবচেয়ে কষ্ট হয় বর্ষার সময়৷ তখন জীবন হাতে নিয়ে নদী পথ পেরতো হয়৷ বর্ষার সময় নদীর জল বেড়ে যাওয়ায় অনেকে ওপারে যেতে চায় না৷ তখন স্কুল কামাই করতে হয়৷ যে ব্রিজটি চার মাসে ভেঙে যায় সেটি এখন নির্মীয়মাণ৷ স্থানীয়রা জানিয়েছেন, প্রশাসনকে বিষয়টি জানানো হয়েছে যাতে দ্রুত গতিতে ব্রিজটি নির্মাণের কাজ শেষ হোক৷ কিন্তু প্রশাসনকে জানিয়েও কোনও লাভ হয়নি৷

Advertisement ---
---
-----