বেজিং: দেশের মাটিতেই মিলিটারি এয়ারক্রাফট তৈরি করছে চিন। আর সেই কাজ এগিয়েছে বেশ কিছুটা। সম্প্রতি স্যাটেলাইট ইমেজে ধরা পড়ল চিনের সেই গোপন প্রজেক্ট। সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে Y-20 নামের ওই এয়ারক্রাফট সংখ্যায় ক্রমশ বাড়ছে।
ছবিতে দেখা যাচ্ছে, চিনের প্রোডাকশন হাব ইয়ানলিয়াং-এ বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে সেইসব যুদ্ধবিমান। মোট ছ’টি বিমান দেখা যাচ্ছে সেখানে।

দেশে তৈরি সেই বিমানের কোডনেম দেওয়া হয়েছে ‘কিনপেং’। এটি আসলে চিনের এক পৌরাণিক পাখি, যা নাকি কয়েক হাজার কিলোমিটার উড়ে যেতে পারত বলে কথিত আছে। চিনের সরকারি সংস্থা ‘অ্যাভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি কর্পোরেশন অফ চায়না’ ওই বিমানগুলি তৈরি করছে। এইসব বিমানের সঙ্গে রাশিয়ার IL-76 এয়ারক্রাফটের খুব মিল রয়েছে। রাশিয়ার এই বিমান ভারতের কাছেও রয়েছে।

Advertisement

আবার চিনের এই বিমানের সঙ্গে মার্কিন এয়ারফোর্সের C-17 গ্লোবমাস্টারেরও অনেক মিল রয়েছে, বিশেষত পিছনের দিকের অংশে। আমেরিকার এই বিমানও রয়েছে ভারতের হাতে।

চিনের Y-20 ২০০ মেট্রিক টন লোডের জন্য বানানো হয়েছে বলেই অনুমান করছেন বিশেষজ্ঞরা। মূলত সেনা ও অস্ত্র বহনের জন্য তৈরি করা হচ্ছে এগুলি। এতে চিনের ইলেকট্রিক ওয়ারফেয়ার বা রিফুয়েলিং ইকুইপমেন্ট বহন করা হবে বলেও মনে করা হচ্ছে। বিশেষত প্রতিকূল আবহাওয়াতে যাতে দ্রুত অস্ত্র পৌঁছে দেওয়া যায়, তার জন্যই তৈরি এই বিমান। ২০১৩ তে প্রথম এই বিমান উড়িয়েছিল চিন। স্যাটেলাইট ইমেজে সেই ছবিও ধরা পড়ে যায়।

চিনের বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী, আগামিদিনে চিন এর মধ্যে কয়েকটিকে মিড-এয়ার রিফুয়েলার হিসেবে ব্যবহার করবে। কয়েকটি ট্রায়াল ভার্সন বিভিন্ন প্রদর্শনীতে দেখা গেলেও, এখনও পর্যন্ত আকাশে ওড়াতে দেখা যায়নি এই বিমানগুলি।

----
--