কলম্বো: নতুন করে শ্রীলঙ্কাকে ২৯৫ মিলিয়ন ডলার অর্থাৎ চিনা মূল্যে ২০০ কোটি দিতে চলেছে বেজিং। ভারতের প্রতিবেশী এই দ্বীপে আধিপত্য বিস্তার করতেই চিন এই উদ্যোগ নিয়েছে বলে মনে করছেন কূটনীতিকরা।

শনিবার এই অনুদানের কথা ঘোষণা করেছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা। চিনের অনুদানে তৈরি একটি হাসপাতালের উদ্বোধনে গিয়ে একথা জানান তিনি। বলেন, চিনের দূত তাঁর অফিসে এসেই জানিয়েছিলেন যে তাঁর জন্য আরও একটি উপহার পাঠাতে চলেছে চিন। তিনি জানিয়েছেন, চিন তাঁকে ২০০ কোটি ইউয়ান দিয়ে, যা তিনি নিজের ইচ্ছামত যে কোনও প্রজেক্টে ব্যবহার করতে পারেন। এই প্রসঙ্গে শ্রীলঙ্কার চিনা দূতাবাসের তরফ থেকে কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

Advertisement

একদিকে, শ্রীলঙ্কার নির্বাচনে টাকা খরচ করার অভিযোগ উঠেছে চিনের বিরুদ্ধে। এর মধ্যেই এমন একটা লোভনীয় প্রস্তাব দিয়েছে চিন। গত মাসেই ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস’-এর একটি রিপোর্টে প্রকাশিত হয় যে, শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি রাজাপক্ষের পুনর্নির্বাচনের জন্য ৭.৬ মিলিয়ন খরচ করেছিল চিন।

কিছুদিন আগে চিনের নিয়ন্ত্রণে থাকা বন্দরে শ্রীলঙ্কার নৌসেনা ঘাঁটি সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। এই বন্দরকে চিন সামরিক কাজে ব্যবহার করতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

বর্তমানে শ্রীলঙ্কার অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র গালেতে অবস্থিত ওই নৌঘাঁটি। সেটিকেই এবার সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে ১২৫ কিলোমিটার দুরে হাম্বানতোতায়। এশিয়া ও ইউরোপের মুল শিপিং রুটের কাছেই অবস্থিত ওই বন্দর। দেড়’শ কোটি ডলারে তৈরি হওয়া ওই বন্দর চিনের ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ প্রকল্পে একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ১১২ কোটি ডলারে সেই বন্দর লিজ নিয়েছে চিনের ‘মার্চেন্টস পোর্ট’। ইতিমধ্যেই শ্রীলঙ্কার নৌসেনা ওই বন্দরে সরতে শুরু করেছে। নির্মাণের কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে।

----
--