প্রথম হাইপারসোনিক এয়ারক্র্যাফ্টের পরীক্ষায় সফল চিন

ফাইল ছবি

বেজিং: প্রথম হাইপারসনিক এয়ারক্র্যাফ্ট পরীক্ষায় সফল চিন৷ সোমবার এই কথা ঘোষণা করে চিন জানায়, এই উন্নতমানের এয়ারক্র্যাফ্টটি পরমাণু অস্ত্র নিয়ে যেতে সক্ষম, পাশাপাশি যে কোনও ধরণের মিসাইল প্রতিরোধ ব্যবস্থাকেও ভেদ করে যেতে সক্ষম৷

চায়না আকাডেমি অব এয়ারোস্পেস এয়ারোডায়নামিকস (CAAA) একটি বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, গত শুক্রবার উত্তর-পশ্চিম চিন থেকে Xingkong-2 অথবা Starry Sky-2 লঞ্চ করা হয়৷ একই ধরণের এক্সপেরিমেন্টে নেমেছে আমেরিকা এবং রাশিয়া৷

পড়ুন: ভারতে প্রতিরক্ষার শক্তি বৃদ্ধিতে কমব্যাট ড্রোনে জোর সরকারের

জানা গিয়েছে, একটি রকেটে সাহায্যে এটি লঞ্চ করা হয় পূর্ব নির্ধারিত জায়গায়৷ শব্দের থেকে পাঁচগুণ অথবা তার থেকেও বেশি গতিবেগে যেতে পারে এই হাইপারসোনিক বিমানগুলি৷ চিনের সরকারি সংবাদ মাধ্যম জানায়, হাইপারসোনিকের এই পরীক্ষা সফল হয়েছে৷ China Aerospace Science and Technology Corporation-এর সঙ্গে CAAA যৌথভাবে এই হাইপারসোনিক এয়ারক্র্যাফ্টটি ডিজাইন করেছে বলে জানা গিয়েছে৷

প্রসঙ্গত, গত ফেব্রুয়ারিতেই একটি খবর প্রকাশ্যে আসে, যেখানে জানতে পারা যায়, চিন একটি হাইপারসনিক হেভি বম্বার আবিষ্কার করেছে, যার সাহায্যে বেজিং থেকে নিউ ইয়র্ক যাবে মাত্র ২ ঘণ্টায়৷

পড়ুন: ‘রুশ হাইপারসোনিক মিসাইল ১২ মিনিটে আমেরিকায় আঘাত করতে পারবে’

এই এয়ারক্র্যাফ্টটি হাইপারসনিক স্পিডে যাবে৷ অর্থাৎ শব্দের থেকে এর গতিবেগ ৫ গুণ বেশি৷ বিমানটি চিনা মিলিটারির হাতেই ছিল বলে জানা যায়৷ এই এয়ারক্র্যাফ্টের ২টি ডানার সেট রয়েছে৷ চাইনিজ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্স এটি তৈরি করে৷ সংস্থার এক গবেষক জানান, “এর স্পিড হাইপারসোনিক৷ বেজিং থেকে নিউ ইয়র্ক যেতে সময় লাগবে মাত্র ২ ঘণ্টা৷”

এটি দেখতে অনেকটা ইংরেজির বড় হাতের “I”-এর মতো৷ গবেষকদের মতে এই এয়ারক্র্যাফ্ট যেমন বোমা নিয়ে যেতে পারে, তেমনই ফুল থেকে যাত্রী, সবই নিয়ে যেতে পারে৷ মিসাইল ডেলিভারি থেকে পারমাণবিক অস্ত্র বহন করতেও সক্ষম এই এয়ারক্র্যাফ্ট৷ এর টার্গেট কখনও মিস হয় না৷ সেদিক থেকেও এই এয়ারক্র্যাফ্ট কার্যকরী৷ বিজ্ঞানীদের মতে এটি চিনের ক্ষেত্রে গেম চেঞ্জার হিসেবে কাজ করতে পারে৷

----
-----