স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: ঘণ্টা বাজিয়ে ২৩ তম যাত্রা উৎসবের উদ্বোধন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। উত্তর ২৪ পরগণার বারাসতের কাছারি ময়দানে যাত্রা উৎসবের উদ্বোধন করেন তিনি। একই সঙ্গে একগুচ্ছ প্রকল্পেরও উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন দুপুরে নদিয়া থেকে হেলিকপ্টারে করে মুখ্যমন্ত্রী বারাসতের বিদ্যাসাগর ক্রীড়াঙ্গনে নামেন। সেখান থেকে মুখ্যমন্ত্রী গাড়িতে করে আসেন কাছারি ময়দানে। ব্রিগেড সমাবেশের আগে মুখ্যমন্ত্রী এদিন যাত্রা উৎসব উদ্বোধনের পর নিজের বক্তব্যে, কেন্দ্রীয় সরকার তথা বিজেপি নেতৃবৃন্দের কড়া ভাষায় সমালোচনা করেন। বিজেপি সরকারের ভ্রান্ত কেন্দ্রীয় নীতির সমালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিনের যাত্রা উৎসবের উদ্বোধনের সভায় উত্তর ২৪ পরগণা জেলার সমস্ত লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ, বিধায়ক, জেলা পরিষদের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন৷ মুখ্যমন্ত্রীর এই সভায় উত্তর ২৪ পরগণার প্রশাসনিক ব্যক্তিত্বরা সকলে উপস্থিত ছিলেন। এদিন তিনি বিভিন্ন প্রকল্পে বেনিফিশিয়ারীদের হাতে সাহায্য তুলে দেন।

আরও পড়ুন : তারকাদের মাঝে লুকিয়ে ‘চোর’, ফের মোদীকে আক্রমণ কংগ্রেস নেত্রীর

বারাসতে যাত্রা উৎসব ও একগুচ্ছ সরকারি প্রকল্পের উদ্বোধন করতে এসে আলোচিত চলচ্চিত্র ‘অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ নিয়ে নিজের আপত্তির কথা তুলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় জানালেন, ‘বিকৃত করে যে বইটি করা হয়েছে তা অন্যায়। মনমোহন সিংহর প্রধানমন্ত্রীত্ব সময়কালের (২০০৪-২০১৪) উপরে অনুপম খের অভিনীত সিনেমাটি এদিনই মুক্তি পেয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রীর মেরুদণ্ডহীন চরিত্র তুলে ধরা হয়েছে৷ যেখানে তাঁর দেশ ও ক্যাবিনেটের উপরে নিয়ন্ত্রণ নেই। তিনি বিশেষ একটি পরিবারের হাতের পুতুল। এই বইটি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সাফ কথা অ্যাক্সিডেন্টাল পি এম তো সবাই৷’

তিনি আরও বলেন ‘নির্বাচনের আগে নাটক করে অ্যাক্সিডেন্টাল পি এম নামে সিনেমা হলে আগামী দিনে ডিজাস্টার পি এম নামে সিনেমা হবে।’ নরেন্দ্র মোদীর দিকে ইঙ্গিত করে তার বক্তব্য, যাঁরা অ্যাক্সিডেন্টাল পি এম তৈরি করেছেন, তাদের ডিজাস্টার পি এম সিনেমা দেখা উচিত। কেউ কখনও ছেড়ে কথা বলে না। তাঁর কথা সত্যের উপরে যাত্রা হওয়া উচিত।

আরও পড়ুন : মমতার রাজ্যে কৃষকদের বাড়তি নজর দেওয়ার নির্দেশ রাহুলের

তার কৈফিয়ত, তিনি কংগ্রেসের সঙ্গে দল করেন না। কংগ্রেসের সঙ্গে তাঁর তফাৎ আছে। কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে দল করেছেন। কিন্তু তাঁর মতে এই সিনেমা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আয়নায় নিজের চেহারা দেখতে পরামর্শ দিয়ে নরেন্দ্র মোদীর নাম না করে তাঁকে গব্বর সিং নামে সম্বোধন করেন মমতা।

দেশ ভাঙ্গার চক্রান্ত হচ্ছে বলেও তিনি সরব হন। গহ্বর সিং হাসতে জানেন না যেমন তেমনই কায়দা হয়েছে বামেদের যারা বনধের নামে স্কুল বাসে বোমা মারছে একই সঙ্গে মোদী ও বামফ্রন্টকে আক্রমণ মুখ্যমন্ত্রীর। এদিন তেইশতম যাত্রা উৎসবের সূচনায় উপস্থিতির হার ছিল কম। এদিন এক গুচ্ছ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য ছিল নবজাতকদের হাতে চারা গাছ তুলে দেওয়া। এছাড়া দুঃস্থ যাত্রা শিল্পীদের বার্ষিক এক কালীন ভাতা বৃদ্ধির ঘোষণা করেন তিনি৷