নারকেল তেল ‘বিষ’ আর ঘি অমৃত!

নয়াদিল্লি: ভারতীয়দের কাছে অন্তত নারকেল তেলের কোনও বিকল্প নেই। যদিও খাবারে এই তেলের ব্যবহার মোটামুটিভাবে দক্ষিণ ভারতেই সীমাবদ্ধ, তবে নারকেলের গুনাগুণ সম্পর্কে অনেক তথ্যই বিভিন্ন সময়ে প্রকাশিত হয়েছে। চিকিৎসকেরাও বলে থাকেন, নারকেল তেল স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। এমনকী ২০১১ তে ‘সুপারফুড’-এর আখ্যাও দেওয়া হয় নারকেল তেলকে। তবে সম্প্রতি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপিকা যা বললেন, তা যথেষ্ট চাঞ্চল্যকর। অধ্যাপিকা কারিন মিশেলের দাবি, নারকেল তেল হল ‘বিষ।’

ভারতের এক বড় অংশের বাসিন্দারা নারকেল তেল নিয়মিত খাবারে ব্যবহার করেন। ফলে হার্ভার্ডের ওই অধ্যাপিকার বক্তব্যের ভিডিও ইন্টারনেটে ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে। এতদিন পর্যন্ত জানা গিয়েছিল যে, নারকেল তেল রোগা হতে সাহায্য করে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমায়। অথচ ওই গবেষকের মতে, নারকেল তেল নাকি আদতে শরীরের ক্ষতি করে।

ভিডিওতে তাঁকে বলতে শোনা যাচ্ছে, ”আমি আপনাদের নারকেল তেল সম্পর্কে সতর্ক করছি। এটা একটা অত্যন্ত খারাপ খাবার।” তিনি বারবার বলেছেন, নারকেল তেল হল আসলে বিষ। তাঁর বক্তব্যে অন্তত তিনবার এই দাবি করেছেন।

- Advertisement -

মিশেল ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেছেন, নারকেল তেলে প্রচুর পরিমাণ স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে। এর থেকে কোলেস্টেরল বাড়তে পারে ও হার্টের সমস্যাও হতে পারে।তাঁর দাবি The American Heart Association গবেষণা করে দেখেছেন যে, নারকেল থেকে ৮০ শতাংশ স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে। এদিকে, বাটারে থাকে ৬৩ শতাংশ ফ্যাট, গোমাংসে ৫০ শতাংশ ও শুকরের মাংসে ৩৯ শতাংশ ফ্যাট থাকে।

তবে, হার্ভার্ড হেল্থ সেন্টারের একজন চিকিৎসক ওয়াল্টার সি উইলেট জানিয়েছেন, নারকেল তেল মোটেই খারাপ নয়। তাঁর মতে, নারকেল তেল HDL বা ভাল কোলেস্টেরল বাড়াতে সাহায্য করে। তবে তিনি এও জানিয়েছেন যে, মাঝে-মধ্যে নারকেল তেল খাওয়া ভাল।

তবে নারকেল তেল নিয়ে সতর্কবার্তা জারি হলেও, ভারতীয়দের জন্য একটা ভাল খবর হল, ঘি-কে ভাল বলছে বিশেষজ্ঞরা। এতে নাকি অনেক কম মাত্রায় কোলেস্টেরল থাকে। এতে থাকে ভিটামিন এ, ডি, ই ও কে। সেইসঙ্গে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়াতে সাহায্য করে ঘি।

Advertisement ---
---
-----