ফিদেলের দেশেই ‘শান্তি’ খুঁজে পেল কলম্বিয়ার গেরিলারা

সংঘর্ষ শেষ৷এবার অস্ত্র নামিয়ে দেবে ফার্ক গেরিলারা

হাভানা ও বোগোটা:  টানা পাঁচ দশকের রক্তাক্ত গৃহযুদ্ধ পার করে নতুন ভোর দেখলেন কলম্বিয়ার নাগরিকরা৷ অবশেষে সরকার ও বিদ্রোহী ফার্ক গোষ্ঠীর মধ্যে সম্পাদিত হল শান্তি চুক্তি৷ কিউবার রাজধানী হাভানায় দু তরফের মধ্যে চুক্তি সম্পাদিত হতেই কলম্বিয়া জুড়ে উল্লাস৷ রাজধানী বোগোটার রাস্তায় নেমে আনন্দে মাতোয়ারা হয়েছেন জনসাধারণ৷

শান্তি চুক্তি হতেই উল্লাস কলম্বিয়ায়
শান্তি চুক্তি হতেই উল্লাস কলম্বিয়ায়

ঐতিহাসিক এক শান্তি চুক্তিতে সই করেছেন কলম্বিয়ার প্রতিনিধি দলের প্রধান হুমবেরতো দে লা চাল্লে ও ফার্কের প্রধান আলোচক ইভান মার্কেজ৷ চুক্তিতে বলা হয়েছে, সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা ও স্থিতিশীল ও দীর্ঘস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠায় উভয় পক্ষ একসঙ্গে কাজ করবে৷ গত পাঁচ দশক এক ভয়াবহ অবস্থার মধ্যে দিয়ে গিয়েছে কলম্বিয়া৷ সরকারি সেনা ও ফার্কের গেরিলাদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত অন্তত ২ লক্ষ৷ বেসরকারি হিসেবে সংখ্যাটা আরও বেশি৷ গত জুনে কলম্বিয়া সরকার ও ফার্ক গেরিলারা দ্বিপাক্ষিক যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়।

হাভানায় ফার্কের সঙ্গে কলম্বিয়ার শান্তি চুক্তি
হাভানায় ফার্কের সঙ্গে কলম্বিয়ার শান্তি চুক্তি

রেভলিউশনারি আর্মড ফোর্সেস অব কলম্বিয়া বা ফার্ক দক্ষিণ আমেরিকার দেশ কলম্বিয়ার একটি অতি বামপন্থী সংগঠন৷  ১৯৬২  সালে চিন যখন তার আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে ভারতের সীমান্ত পার হয়েছিল৷ তার কিছু দিন পরেই দুনিয়ার অন্য প্রান্ত কলম্বিয়ায় মাওপন্থী কমিউনিস্টদের সামরিক শাখা ফার্কের প্রতিষ্ঠা হয়৷  কিউবার আদর্শে স্থানীয় কৃষকরা আগেই বাধ্য হয়ে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিলেন৷ কিন্তু পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মতো সেখানেও তাঁদের সেই লড়াই মাওবাদী ইন্ধনে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যায়৷ এরপর থেকেই শুরু হয়েছিল নতুন করে কলম্বিয়ার রক্তাক্ত ইতিহাসের পটভূমি৷

এবার অস্ত্র ছেড়ে মূলস্রোতে ফিরবে ফার্ক
এবার অস্ত্র ছেড়ে মূলস্রোতে ফিরবে ফার্ক

সেদেশে ছড়িয়ে পড়ে মাওবাদী সন্ত্রাসবাদ৷  গুমখুন, অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের সঙ্গে জড়িয়ে যায় কলম্বিয়ার জঙ্গি সংগঠন ফার্কের নাম৷ দুপক্ষের লড়াই বহুবার সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে৷ শেষ পর্যন্ত একটা সময়ে ফার্ক এবং ড্রাগ মাফিয়ার উভয়ের বিরুদ্ধেই খোলাখুলি যুদ্ধ ঘোষণা করতে হয় কলম্বিয়ার সরকারকে৷
হাভানার শান্তি চুক্তি শেষে কলম্বিয়ার প্রতিনিধি দে লা চাল্লে জানান, যুদ্ধ শেষ, এখন নতুন সূচনা। আর ফার্কের প্রতিনিধি প্রধান মার্কেজ জানান, এটা ছিল কঠিন একটা কাজ৷ এখন আমরা বলতে পারি, আমাদের দেশকে আমরা এগিয়ে নিতে পারব।
peace-talk

----
-----