একটিমাত্র জেলাপরিষদ আসনও হাতছাড়া হতে চলেছে অধীরের

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বীরভূম জেলাপরিষদ বিরোধীশূন্য করেছেন তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল। এবার প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর খাসতালুক মুর্শিদাবাদেও জেলাপরিষদ বিরোধীশূন্য হতে চলেছে।

জানা গিয়েছে খুব শীঘ্রই ফারাক্কায় জেলাপরিষদ আসনে জয়ী একমাত্র কংগ্রেস সদস্য আসিফ ইকবাল তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছেন৷ সম্ভবত ২১শে জুলাইয়ের মঞ্চেই ঘাসফুলের ঝান্ডা হাতে নেবেন তিনি৷

আরও পড়ুন: ইরানের তেল রফতানি বন্ধ হলে অন্য দেশও বেচতে পারবে না

- Advertisement -

এবার পঞ্চায়েত ভোটের আগেই মুর্শিদাবাদ জেলাপরিষদ বিরোধীশূন্য করার কথা ঘোষণা করেছিলেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। সেই মতো তিনি দলের জেলা নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে ভোটের ময়দানে ঘুঁটি সাজিয়েছিলেন।

কিন্তু, জেলাপরিষদের ৭০টি আসনের মধ্যে কংগ্রেস একটি আসন দখল করায় তৃণমূলের বিরোধীশূন্য বোর্ড গড়ার পরিকল্পনা থমকে যায়। পঞ্চায়েতের ফল ঘোষণার দেড় মাসের মধ্যে জেলাপরিষদ আসনে জয়ী কংগ্রেস প্রার্থী দলবদলের কথা ঘোষণা করায় তৃণমূলের বিরোধীশূন্য জেলাপরিষদ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হতে চলেছে।

আরও পড়ুন: সুখবর! এবার মেয়ে-বোনের জন্যেও মিলবে পিতৃত্বকালীন ছুটি

আসিফ ইকবাল তৃণমূল যোগের খবরের সত্যতা স্বীকার করে নিয়ে জেলার কংগ্রেস সভাপতি আবু হেনা বলেন, শুনেছি আসিফ ইকবাল ফারাক্কার বিধায়ক মইনুল হকের আত্মীয়৷ মইনুল হকও তো তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন৷ যাওয়ার সময় সঙ্গে করে নিজের ঘরের লোকজনকেও নিয়ে যাচ্ছেন৷ তবে ‘বিরোধীশূন্য’ শব্দে আপত্তি রয়েছে আবু হেনার৷ তার বক্তব্য, এখানে ভোটই হয়নি৷ ভোট লুঠ হয়েছে৷ ভোট করে যদি আমাদের হারাতে পারত তাহলে বিরোধীশূন্য বলার অধিকার থাকত৷

এবার পঞ্চায়েত নির্বাচনে একটিমাত্রই জেলা পরিষদ জিতেছিলেন অধীর চৌধুরী৷ কিন্তু সেটাও ধরে রাখতে পারলেন না৷ জেলায় কংগ্রেসের একের পর এক পুরসভা দখল করেছে তৃণমূল৷ কংগ্রেসের একাধিক বিধায়ককেও নিজেদের দিকে টেনে নিয়েছে তারা৷

আরও পড়ুন: সেনাদের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে মসজিদে লুকিয়ে জঙ্গিরা

এখনও কয়েকজন তৃণমূলের দিকে পা বাড়িয়ে রয়েছেন৷ লোকসভা নির্বাচনের আগে দলের এই বেহাল দশা অধীর চৌধুরীর কপালে ভাঁজ ফেলবে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷

Advertisement ---
---
-----