রাফায়েলে চড়ে তৃণমূলকে আক্রমণ কংগ্রেসের

দেবযানী সরকার, কলকাতা: রাফায়েল ইস্যুতে ছাড় পাচ্ছে না তৃণমূল কংগ্রেসও। মোদি সরকারের পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেস এর বিরুদ্ধেও আন্দোলন করতে চলেছে প্রদেশ কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার সেই ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি নেতা সোমেন মিত্র।

‘রাফায়েল ডিল’ নিয়ে মোদি সরকারকে আষ্টেপৃষ্টে চেপে ধরতে উঠে পড়ে লেগেছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। লোকসভা নির্বাচনের আগে দেশ জুড়ে আন্দোলনের ঝাঁঝ বাড়াতে চান তিনি। এআইসিসির নির্দেশে বাংলাতেও রাফায়েল নিয়ে কংগ্রেস নেতারা মাঠে নামছেন। সাত থেকে পনেরো, টানা এক সপ্তাহ রাজ্য জুড়ে রাফায়েল ইস্যু নিয়ে আন্দোলন করবে তারা। প্রত্যেক জেলায় মিটিং, মিছিল, সভা করে মোদি সরকারের কেলেঙ্কারির কথা বোঝাবে তারা।

পড়ুন: তৈরি থাকুন, রাফায়েল থেকে আরও বড় বোমা পড়বে: রাহুল

- Advertisement -

বৃহস্পতিবার প্রদেশ কংগ্রেস এর অন্যতম অভিভাবক সোমেন মিত্র স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন বিজেপি তাদের প্রধান নিশানা হলেও তৃনমূলকেও তারা কোনোভাবেই ছাড়বে না। তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন রাফায়েল নিয়ে সরব হচ্ছেন না সেই প্রশ্ন তুলেছে কংগ্রেস। অনিল আম্বানির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের জন্যই কি মমতা চুপ, ঘুরিয়ে সেই প্রশ্নও তুলেছেন সোমেন মিত্র।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকার এর আমলে আন্তর্জাতিক দরপত্র অনুসারে ১২৬টি রাফায়েল যুদ্ধবিমান কেনার কথা চূড়ান্ত হয়। এক একটি রাফায়েল যুদ্ধ বিমানের দাম ৫২৬.১০ কোটি টাকা করে নির্ধারিত হয়। ঠিক হয়, ১২৬টির ভেতর ১৮টি ভারত পাবে সম্পূর্ণ প্রস্তুত অবস্থায়। বাকি ১০৮ তিফ ক্ষেত্রে ফ্রান্স রাফায়েল যুদ্ধ বিমানের প্রযুক্তি ও যন্ত্রাংশ হস্তান্তর করবে। পরে ভারতীয় কোনো সংস্থা ফ্রান্স এর পাঠানো যন্ত্রাংশ সংযুক্ত করে গড়ে তুলবে যুদ্ধবিমান।

পড়ুন: রাফায়েল চুক্তির ফাঁকফোকর খুঁজে বের করতে টাস্ক ফোর্স গঠন রাহুলের

মোদি সরকারের আমলে ফ্রান্সের পাঠানো যন্ত্রাংশ সংযুক্তিকরণের দায়িত্ব দেওয়া হয় অনিল আম্বানি গোষ্ঠীকে। এখানেই প্রশ্ন তোলে কংগ্রেস। তাদের প্রশ্ন, কেন এই কাজে সত্তর বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হ্যাল কে বাদ দিয়ে বরাত দেওয়া হলো অনিল আম্বানি গোষ্ঠীকে। কারণ আম্বানি গোষ্ঠীর কোনো অভিজ্ঞতা নেই এই কাজে। আর মোদী সরকারের আমলে এটা অন্যতম একটা বড় কেলেংকারী বলে মনে করছে কংগ্রেস। কিন্তু এটা নিয়ে মোদি বিরোধীতার অন্যতম প্রধান মুখ মমতা এখনো চুপ।তৃণমূল এর বিরুদ্ধে এটাই কংগ্রেস এর হাতিয়ার হতে চলেছে। কারণ কংগ্রেস মনে করছে, অনিল আম্বানির সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যক্তিগত সম্পর্কও যথেষ্ট ভাল৷

Advertisement ---
---
-----