কুণালকে সামনে রেখেই মমতার উপর চাপ বাড়াবে বিজেপি-কংগ্রেস!

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: ক্ষমতা বড় বালাই৷ তার জন্য বন্ধুত্ব করা যায় চরম শত্রুর সঙ্গেও৷ বুধবার তারই প্রমাণ মিলল মুর্শিদাবাদের ফরাক্কায়৷ জোট গঠন করল বিজেপি ও কংগ্রেস৷ আর এই জোটে রাহুল-মোদীর দলের তুরুপের তাস কুণাল ঘোষ৷

রাহুলের দলের সঙ্গে এই জোট গড়ে বরং আখেরে লাভই হল মোদী-ভক্তদের৷ সরাসরি তাঁরা পেয়ে গেলেন ফরাক্কার বেওয়া গ্রাম পঞ্চায়েতে ‘রাজত্ব’ করার ছাড়পত্র৷ ওই পঞ্চায়েতে এবার বিজেপির সদস্য কুণাল ঘোষ প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হলেন৷

আরও পড়ুন: হকির জাদুগরের জন্মদিনে এশিয়ান গেমসের ফাইনালে ভারত

- Advertisement -

বেওয়া গ্রাম পঞ্চায়েতে আসন সংখ্যা ১৫৷ এর মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস ৬টি আসন পেয়েছে৷ বিজেপি জিতেছে ৫টি আসনে ও কংগ্রেসের দখল রয়েছে চারটি আসন৷ ফলে নির্বাচনের ফলাফলে ওই পঞ্চায়েত ত্রিশঙ্কুই ছিল৷

এই পরিস্থিতিতে কাদের দখলে যায় ওই গ্রাম পঞ্চায়েত তা নিয়ে জল্পনার অন্ত ছিল না৷ পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে হয়ে ওঠে একটি দলবদলের ঘটনায়৷ বিজেপির এক সদস্য যোগদান করেন তৃণমূলে৷ ফলে বোর্ড গঠনের জন্য আর দু’টি ভোটের প্রয়োজন ছিল শাসক দলের৷

আরও পড়ুন: ‘মার্কিন সেকেন্ড হ্যান্ড অস্ত্রের কোনও প্রয়োজন নেই সেনাবাহিনীর’

বুধবার ওই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের পর দেখা গেল, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলকে ঠেকাতে হাত মিলিয়েছে কংগ্রেস ও বিজেপি৷ ফলে সব মিলিয়ে তাদের মোট আসন হয় ৮৷ তাতেই বোর্ড গঠনে হারতে হয় তৃণমূলকে৷ কংগ্রেসের সমর্থনে প্রধান হলেন বিজেপির কুণাল ঘোষ৷ উপপ্রধান হয়েছেন আব্দুল ফারুক৷ বিজেপি ও কংগ্রেসের দাবি, জেলায় শাসক দলের সন্ত্রাস ও শাসন দলকে ঠেকাতে যৌথ ভাবে তাদের এই পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন।

আরও পড়ুন: বন্দি ‘ঝুমা বৌদি’ কী হবে ঠাকুরপোদের?

Advertisement
---