বছর ঘুরলে কোচবিহারে মেডিক্যাল কলেজ খোলার সম্ভাবনা

স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: বছর খানের মধ্যেই হতে পারে অপেক্ষার অবসান৷ আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকেই কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজের পঠনপাঠন শুরু হতে পারে৷ অন্তত এমনই আশা প্রকাশ করলেন কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজের নবনিযুক্ত অধ্যক্ষ সুকুমার বসাক।

বুধবার তিনি কোচবিহারে এসেছিলেন৷ সঙ্গে ছিলেন কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের এমএসভিপি রাজীব প্রসাদ। তাঁরা এদিন মেডিক্যাল কলেজ তৈরির অগ্রগতি নিয়ে কথা বলেন।

আরও পড়ুন: মেডিক্যাল অগ্নিকাণ্ড: চিকিৎসা পরিষেবা না পেয়ে রোগীর মৃত্যু অভিযোগ

এদিন সুকুমার বসাক বলেন, ‘‘আগামী নভেম্বর মাস নাগাদ মেডিক্যাল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার প্রতিনিধি দল কোচবিহারে মেডিক্যাল কলেজের পরিকাঠামো খতিয়ে দেখতে আসবেন৷ তারা যদি পরিকাঠামো দেখে সন্তোষ প্রকাশ করে, তবেই মিলবে আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে পঠন পাঠনের অনুমতি।’’

অধ্যক্ষ সুকুমার বসাক বলেন, ‘‘ইতিমধ্যে ৪৩ জন শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে৷ আরও শিক্ষক নিয়োগ হবে। কোচবিহার যুব আবাসের যে ঘরগুলি প্রাথমিক ভাবে পঠনপাঠনের জন্য নির্দিষ্ট করা হয়েছে সেগুলির পরিকাঠামো দ্রুত তৈরি হবে।’’

আরও পড়ুন: রাহুল-মমতাদের চিন্তা বাড়িয়ে দিলেন ইনি!

পাশাপাশি মেডিক্যাল কলেজের বিদ্যুৎ পরিষেবার জন্য সেখানে সৌর শক্তির ব্যবহারের জন্য উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরে আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

তাঁর কথায়, প্রতিমাসে কোচবিহার এমজেএন হাসপাতালকে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা বিদ্যুতের বিল দিতে হয়৷ মেডিক্যাল কলেজ হলে তা আরও বাড়বে। তাই উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের কাছে এই বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ বিলের থেকে রেহাই পেতে এই মেডিক্যাল কলেজে সৌর প্যানেল বসানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: BREAKING- রাজ্য বিজেপির নির্বাচন কমিটির মাথায় মুকুল

তিনি বলেন, ‘‘ইতিমধ্যে মেডিক্যাল কলেজের জন্য একজন ল্যাপ্রোস্কোপি সার্জেন ও চোখের ছানির অপারশনের জন্য ফেকো মেশিন চাওয়া হয়েছে।’’

----
-----