শিমলা: বহু দুর্নীতির অভিযোগ এসেছে চেক পয়েন্টের দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে৷ অভিযোগ, তীর্থযাত্রীদের রাজ্যে ঢুকতে দেওয়ার নামে তোলা আদায় করেন দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মীরা৷ এই দুর্নীতি রুখতে এবার থেকে দায়িত্বে থাকাকালীন পকেটে কত টাকা নগদ রাখা যাবে তা বেঁধে দিল হিমাচল প্রদেশের উনা জেলা৷ এই জেলার পুলিশ প্রধান নির্দেশ দিয়েছেন যে, এবার থেকে চেক পয়েন্টের দায়িত্বে থাকা অবস্থায় পুলিশরা শুধুমাত্র ২০০ টাকা নগদ পকেটে রাখতে পারবেন৷

উনার সুপারিটেন্ডেন্ট অফ পুলিশ দিবাকর শর্মা জানান, পাহাড়ি রাজ্যে ঢোকার সময় তীর্থযাত্রীদের কাছ থেকে চেক পয়েন্টের দায়িত্বে থাকা পুলিশরা ঘুষ চাইছেন, এমন বহু অভিযোগ তাঁর কাছে জমা পড়েছে৷ সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘হিমাচল প্রদেশের মন্দিরগুলিতে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য আসা প্রতিবেশী পঞ্জাবের তীর্থযাত্রীদের কাছ থেকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ আসছিল৷ ক্রমাগত আসা এই অভিযোগগুলিই আমাকে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে৷’’

Advertisement

দিবাকরবাবু জানান, চিন্টুপূর্ণি, জাওয়ালজি এবং কাংগরা সহ রাজ্যের বহু তীর্থস্থানে পঞ্জাবের হাজার হাজার তীর্থযাত্রী আসেন৷ আর এই সব তীর্থস্থানগুলিতে যাওয়ার জন্য এই রাজ্যটিই মূল প্রবেশ দ্বার৷ তীর্থযাত্রীদের স্বার্থে শুক্রবার ২০০ টাকা নগদ পকেটে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি৷ যা শনিবার থেকে লাঘু হয়ে গিয়েছে৷

উনার পুলিশ প্রধান আরও বলেন, ‘‘যদি চেক-পোষ্টের দায়িত্বে থাকা কোনও পুলিশ কর্মীর ২০০ টাকার বেশি নগদ কাছে রাখার প্রয়োজন থাকে, সেক্ষেত্রে, ঠিক কত টাকা রাখছেন তা সংশ্লিষ্ঠ পুলিশ স্টেশনে থাকা নিয়মিত ডাইরিতে উল্লেখ করতে হবে ওই কর্মীকে৷’’ গত ২৮ মার্চ মুবারকপুরের চেক-পোষ্টে তীর্থযাত্রীদের কাছ থেকে ঘুষ নেওয়ার সময় হাতে নাতে ধরা পড়েন পাঁচ জন পুলিশ কর্মী৷ তাদেরকে সাসপেন্ড করে দেন দিবাকরবাবু৷

তার পরে, গত ২০ জুন মারওয়ারি চেক-পোষ্টের দায়িত্বে থাকা একজন পুলিশ কর্মী ঘুষ নিচ্ছেন সন্দেহ হওয়ায় তাকে ট্রান্সফার করে দেওয়া হয়৷ দিবাকরবাবু জানিয়েছেন, দুর্নীতির অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত কিছু পুলিশ কর্মীর থেকে চালান দেওয়ার ক্ষমতা কেড়ে নেওয়া হয়েছে ও তাদের কম্পাউন্ড গাড়ি নিয়ে নেওয়া হয়েছে৷

কিন্তু, এই সকল কঠোর পদক্ষেপের পরেও একের পর এক দুর্নীতির অভিযোগ আসতে থাকে পুলিশ প্রধানের কাছে৷ তার জেরে কার্যত এই পদক্ষেপ নিতে তিনি বাধ্য হয়েছেন বলে জানাচ্ছেন দিবাকরবাবু৷ তিনি বলেন, ‘‘৪ জানুয়ারি উনার এসপি হয়ে আসার পর আমি সাদা পোষাকে অনেকবার হানা দিয়ে দেখেছি যে, চেক পয়েন্টগুলিতে প্রচণ্ড দুর্নীতি হয়৷ আমি আশা করছি আমার এই সিদ্ধান্ত দুর্নীতি প্রতিরোধে কাজ দেবে৷’’

----
--