প্রমাণের অভাবে জামিন পেলেন তৃণমূল কাউন্সিলর

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: অবৈধ পুকুর ভরাটের অভিযোগ উঠল উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহ পুরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের পুরসভার তৃণমূল কংগ্রেস কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে৷ কিন্তু গ্রেফতারের পরেও প্রমাণের অভাবে তাকে জামিন দিল বারাকপুর আদালত। কাউন্সিলরের নাম সঞ্জীব পাল চৌধুরী ওরফে ববি৷

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে তার নিজের ওয়ার্ডে অবৈধভাবে পুকুর ভরাটের অভিযোগে গ্রেফতার করেছিল খড়দহ থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন: ছোট্ট দুর্গাদের অসহায়তাই থিম এই পুজো মণ্ডপের

- Advertisement -

এদিন বিকেলে তাকে তোলা হয় উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুর মহকুমা আদালতে। কিন্তু সুনির্দিষ্ট প্রমাণের অভাবে বৃহস্পতিবার বিকেলে ১০০০ টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে তার জামিন মঞ্জুর করে আদালত। তার বিরুদ্ধে প্রোমোটিং চক্রে জড়িয়ে পুকুর ভরাটের অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। এই ঘটনায় জড়িত গ্রেফতার হওয়া অন্য তিন প্রোমোটারকে অবশ্য শ্রীঘরে পাঠিয়েছে বারাকপুর আদালত।

পুলিশ সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, একই অভিযোগে কাউন্সিলর সঞ্জীব পাল চৌধুরী ছাড়াও দীপঙ্কর দলুই, সুভাষ পন্ডিত ও নৃপেন্দ্রনাথ কোলে নামে আরও তিনজন প্রোমোটারকে গ্রেফতার করে খড়দহ থানার পুলিশ৷ অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এদিনই বারাকপুর আদালতে পেশ করে পুলিশ। ওই তৃণমূল কাউন্সিলর সহ মোট চার জনের বিরুদ্ধে (৪) ডিএলআরও এক্ট এবং ১৭ এ ডব্লিউ বি, ইনল্যান্ড ফিসারিজ এক্ট ১৯৮৪ ধারায় অভিযোগ আনা হয়। ধৃতদের বিরুদ্ধে পুলিশ নিরপেক্ষ তদন্ত করবে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: বাবাকে জড়িয়ে ধরে অঝোরে কেঁদে ভাসালেন জাহ্নবী!

বর্তমান রাজ্য সরকার কঠোর আইন করে ঘোষনা করেছিল কোনভাবেই কোথাও জলাশয় ভরাট করা যাবে না। অবৈধ উপায়ে জলাশয় ভরাটের অভিযোগে বৃহস্পতিবার সকালেই গ্রেফতার করা হয়েছিল ওই তৃণমূল নেতাকে। পরে প্রমাণের অভাবে তাকে ব্যক্তিগত ১ হাজার টাকার বন্ডে জামিন দেয় আদালত।

যদিও এই প্রসঙ্গে খড়দহ পুরপ্রধান তাপস পালকে ফোন করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান৷ তিনি জানিয়েছেন, ওই কাউন্সিলরকে গ্রেফতারের বিষয়টি তার জানা নেই। এদিকে এই ঘটনায় জড়িত অন্য তিন প্রোমোটারদের মধ্যে সুভাষ ও নৃপেন্দ্রনাথকে তিন দিনের জন্য পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে বারাকপুর আদালত৷ পাশাপাশি দীপঙ্করকে সাত দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

আরও পড়ুন: দিনে দুপুরে ছিনতাই চার লক্ষ টাকা

খড়দহর স্থানীয় বাসিন্দারা অবশ্য মনে করছেন ববিকে গ্রেফতার ও পরে জামিন হওয়ার ঘটনার মধ্যে দিয়ে দলের অন্যান্য কাউন্সিলরদের সতর্ক করা হল দুর্নীতি থেকে দূরে থাকতে।

Advertisement
---