খড়ের গাদায় সূঁচের সন্ধানে ১৫৩ সমরাস্ত্র!

এ যেন খড়ের গাদায় সূঁচ খোঁজার সমান৷ আর তাতে সামিল প্রায় সারা বিশ্বই৷ অত্যাধুনিক প্রযুক্তিও হার মেনেছে প্রকৃতির কাছে৷ প্রায় একমাস অতিক্রান্ত হয়ে গেলেও, সুনির্দিষ্ট কোনও তথ্য-সূত্র হাতে পায়নি বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশ৷ আকাশ ও জলপথে তন্ন তন্ন করে খুঁজেও এখনও হদিশ মেলেনি ২২৭জন যাত্রী এবং ১২জন ক্রু সদস্যকে নিয়ে আকাশে ‘ভ্যানিস’ হয়ে যাওয়া মালয়েশিয়া বিমান এমএইচ ৩৭০৷ এখনও পর্যন্ত তথ্য-সূত্র পাওয়া গিয়েছে, তা শুধুই উপগ্রহ মারফত কিছু সম্ভাব্য-আন্দাজ৷ অথচ, বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি, যুদ্ধ জাহাজ, বিমান আকাশ ও জনপথে নামিয়েও বিন্দুমাত্র সুনির্দিষ্ট সূত্র খুঁজে পাওয়া যায়নি৷ কিন্তু,  এমএইচ অনুসন্ধানে যে পরিমাণ বিমান, জাহাজ, হেলিকপ্টার, সাবমেরিন এবং উপগ্রহকে কাজে লাগানো হয়েছে, তা রীতিমতো চক্ষুচ়ড়ক হওয়ার মতো৷
৮ মার্চ মালয়েশিয়া থেকে ২২৭ জন যাত্রী এবং ১২জন ক্রু সদস্যকে নিয়ে এমএইচ ৩৭০ চিনের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়৷ কিন্তু, মাঝ আকাশ থেকে তা কোথাও উধাও হয়ে যায়, একমাস পরেও তা জানা যায়নি৷ মালয়েশিয়া সরকার দু’বার দু’দফায় দু’রকম আশঙ্কার কথা জানিয়েছে৷ কখনও বলেছে,  হাইজ্যাক করা হয়েছে৷ কখনও বলা হয়েছে, মাঝআকাশে থেকে বিমান ভেঙে পড়ে গহন সমুদ্রে৷ সলিল সমাধি হয়েছে বিমানের যাত্রী এবং ক্রু সদস্যরা৷ বেশ কয়েকবারই মতামত বদলেছে মালয়েশিয়া সরকার৷ অস্ট্রেলিয়া, চিনের উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়া সম্ভাব্য ভেঙে পড়া বিমানের অংশের খোঁজে ছুটে গিয়েছে বিভিন্ন দেশের বিমান, জাহাজ, ডুবো জাহাজ এবং হেলিকপ্টার৷ আলোর সন্ধানে গিয়ে অন্ধকারে পড়তে হয়েছে বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশকে৷
মঙ্গলবার মালয়েশিয়া সরকার আবার ঘোষণা করে পুরনো অবস্থান থেকে ফিরে এল৷ ঘটনার চারদিন পর মালয়েশিয়ার সরকার জানিয়েছিল, নিখোঁজ বিমানের সঙ্গে শেষবার এটিএসের সঙ্গে সহচালকের সঙ্গে কথা হয়েছিল৷ দাবি করা হয়েছিল, প্রথা ভেঙে বিমানের সহচালক বলেছিলেন ‘অল রাইট, গুড নাইট’৷ এদিন মালয়েশিয়া সরকার জানাল, সেদিন সহচালক এ কথা বলেনি৷ শেষবার এটিসির সঙ্গে ওই বিমানের ককপিট থেকে যে বার্তা বিনিময় হয়,  তা ছিল ‘গুড নাইট মালয়েশিয়ান থ্রি সেভেন জিরো৷’
মঙ্গলবার থেকে ফের নতুন করে সার্চ অপারেশেন শুরু করল মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ভারত সহ বিভিন্ন দেশ৷ বিভিন্ন দেশ থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, নিখোঁজ এমএইচ ৩৭০ বিমানের খোঁজে রীতিমতো যুদ্ধবহর নিয়ে আকাশ ও জলে নেমে পড়া হয়েছে৷ পৃথিবীর তিনভাগ জলে একটি একটি বিমান খোঁজার ঘটনা কার্যত খড়ের গাদায় সূঁচ খোঁজার মতো অবস্থা হয়েছে৷ পরিসংখ্যান বলছে, নিখোঁজ এমএইচ ৩৭০ বিমানের সন্ধান যোগ দিয়েছে ২১টি দেশ৷ এই তালিকায় রয়েছে চিন, ভিয়েতনাম, ভারত, ফিলিপিন্স, অস্ট্রেলিয়া, বাংলাদেশ, সিঙ্গাপুর, মায়ানমার, কম্বোডিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, নিউজিল্যান্ড, আমেরিকা, জাপান, তাইওয়ান, নরওয়ে, ব্রিটেন, থাইল্যান্ড, আরব আমিরশাহী, ফ্রান্স এবং মালয়েশিয়া৷
এই ২১টি দেশ নিখোঁজ বিমানের সন্ধানে আকাশপথে উড়াচ্ছে ৬২টি বিমান, সাতটি হেলিকপ্টার৷ জলে নামানো হয়েছে ৭৯টি জাহাজ এবং একটি সাবমেরিন৷ এছাড়াও চিন, আমেরিকা জাপান এবং ফ্রান্স উপগ্রহ মারফত নিখোঁজ এমএইচ ৩৭০ বিমানের সন্ধান চালাচ্ছে৷ রীতিমতো  সমর-বহর নামিয়েও সুনির্দিষ্ট আলোর সন্ধান খুঁজে পাচ্ছে না উন্নত বিশ্ব৷

নিখোঁজ বিমানের খোঁজে কোন কোন দেশ কীভাবে সন্ধান চালাচ্ছে৷
নিখোঁজ বিমানের খোঁজে কোন কোন দেশ কীভাবে সন্ধান চালাচ্ছে৷

 




———————————————————————————————————————————————————————-

Advertisement
---